রাবিতে বইমেলার শেষ দিনে উপচে পড়া ভিড়

রাবি পাঠক ফোরাম আয়োজিত তিন দিনব্যাপী একুশে বই মেলার আজ শেষ দিন। মেলার শেষ দিনে অন্যান্য দিনের তুলনায় বইপ্রেমীদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী, মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলন বিষয়ক বইয়ের পাশাপাশি বিজ্ঞান, সংস্কৃতি বিষয়ক ছাড়াও ক্যারিয়ার বিষয়ক বই বেশি ক্রয় করছে বলে আয়োজকরা জানান ।

বই মেলায় ভিড়ের মধ্যে কথা হয় রাবি আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মোস্তাকিম পাভেলের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমাদের ক্যাম্পাসে ভাষার মাসে বই মেলার আয়োজন দেখে খুব ভালো লাগছে। বাঙালি চেতনা ও সংস্কৃতির পাশাপাশি বিজ্ঞান ও গণিত চর্চা আবশ্যক, তাই আমি ‘বিজ্ঞানের আরো তিনশ প্রশ্ন’ ও ‘নিউরনের আবারো অনুরণন’ বই দুটি কিনেছি।

কথা হয় আরেক বইপ্রেমী গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের হৃদয় খানের সঙ্গে, বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বই মেলায় প্রকাশিত বইয়ের দেখা মিলছে। আমি সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী তাই সাংবাদিকতা বিষয়ক বইয়ের খোঁজে এখানে এসেছি। এখানে তুষার আবদুল্লার লেখা ‘টিভি রিপোর্টিং’ বইটা কিনলাম। এরকম আয়োজন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক বেশি হলে বই প্রেমীদের সংখ্যা বাড়বে বলে মনে করি।

বই মেলা ঘুরে দেখা যায় মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন, জীবনী, ভ্রমণ কাহিনী, ক্যারিয়ার বিষয়ক সহ হরেক রকমের বই। এর মধ্যে চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তযুদ্ধের স্মৃতি ও গান, যুদ্ধদিনের স্মৃতি, একাত্তরের রণাঙ্গন, নীল খাচার পাখি, মা সহ নতুন-পুরাতন অনেক বইয়ের সমাহার।

বই মেলা বিষয়ে পাঠক ফোরামের গ্রন্থাগার বিষয়ক সম্পাদক, আরমান হোসেন জুবায়েত বলেন, আমরা তিনদিনব্যাপী এ বই মেলার আয়োজন করেছি। এ আয়োজনে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। সকাল-বিকাল বই কিনতে শিক্ষার্থীদের ভিড় দেখা যাচ্ছে লক্ষ্য করার মতো।  আগামীতে আমরা আরো বড় পরিসরে সাতদিন কিংবা মাসব্যাপী করার চেষ্টা করবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়ামের পাশের এ বই মেলায় ১১টি স্টল দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র, বই বিতান, বুকস ভ্যালি, স্বপ্ন চড়–ই পত্রিকা, শিক্ষক-কর্মকতা লেখক স্টল উল্লেখযোগ্য। এর মধ্যে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র শুধু প্রদর্শনীর উদ্দেশ্যে স্টল দিয়েছে। এখানে সময় টিভির বার্তা প্রধান তুষার আব্দুল্লাহর লেখা বই নিয়ে একটি স্টল রয়েছে। ফোরামের তথ্য সরবরাহে একটি স্টলও রয়েছে।

Facebook Comments