আমবয়ানে শুরু বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব

চার দিন বিরতির পর গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ পারে আজ শুক্রবার আমবয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়েছে। এবার ইজতেমায় আসবেন প্রথম পর্বে অংশ গ্রহণ না করা বাকী জেলার মুসল্লিরা। ২য় পর্বেও রয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে ময়দানকে ২৯টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। রোববার আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে ইজতেমা শেষ হবে। ৮ জানুয়ারি শুরু হওয়া বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব ১০ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

১৬ জেলার মুসল্লিদের পর আরো ১৬ জেলার মুসল্লিদের জন্য মুসলমানদের ২য় বৃহত্তম ধর্মীয় জমায়েত বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্ব শুরু হয়েছে আজ থেকে। সারা বাংলাদেশকে চার ভাগে ভাগ করে ১৬ জেলার মুসল্লিদের নিয়ে ৮ জানুয়ারি শুরু হয়েছিলো বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। এ বছর মোট দুই পর্বে যেসব জেলার মুসল্লি ইজতেমায় অংশ নেবেন তাদের বাদ দিয়ে বাকি ৩২ জেলার মুসল্লিদের জন্য আগামী বছর হবে ২ পর্বের বিশ্ব ইজতেমা।

এবছরের দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমায় শরীক হতে টংগীর তুরাগ তীরে লাখো মুসল্লি জমায়েত হয়েছেন। আল্লাহকে খুশি করতে এখানে এসেছেন তারা, ইজতেমায় অংশ নিতে খুব ভালো লাগে বলেও জানান।

বাড়তি সওয়াবের আশায় ইজতেমা মাঠেই রয়ে গেছেন আগের পর্বের বিদেশী মুসল্লিও। আবার নতুন করে আসছেন অনেকে। বিভিন্ন দেশ থেকে আসা মুসল্লিরা বলেন, ইজতেমার অংশ হতে পেরে খুব ভালো লাগছে তাদের।

প্রথম পর্বের মতোই কোনো ঝামেলা ছাড়া আগত মুসল্লিদের সেবা দেয়ার মানসিকতা নিয়ে দ্বিতীয় পর্ব শেষ করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন গাজীপুর থানার এসপি মো. হারুন অর রশীদ।

মুসল্লিদের চিকিৎসা দিতে আশপাশে স্থাপন করা হয়েছে বেশ কয়েকটি মেডিকেল ক্যাম্প। এ পর্বের জন্যও বিশেষ ট্রেন দিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। বিআরটিসি চালু রেখেছে অতিরিক্ত বাস সার্ভিস।

নিরাপত্তা নিয়ে গতকাল দুপুরে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে পুলিশের ব্রিফিং হয়। এ সময় পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) এস এম মাহফুজুল হক নুরুজ্জামান বলেন, সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে নিরাপত্তার জন্য সবকিছু করা হয়েছে।

গাজীপুরের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ জানান, বিশ্ব ইজতেমায় দ্বিতীয় পর্বের নিরাপত্তায় পাঁচ হাজারের বেশি পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে।

Facebook Comments