ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাংসদের কার্যালয়ে আগুন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাংসদ র আ ম উবাইদুল মুকতাধির চৌধুরীর হালদার পাড়ার কার্যালয় ভাঙচুর করে আগুন দিয়েছে বিক্ষুব্ধ মাদ্রাসাছাত্ররা।

মাদ্রাসার ছাত্র, ব্যবসায়ী ও ছাত্রলীগের ত্রিমুখী সংঘর্ষে একজন নিহত হওয়ার জের ধরে মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ হামলা চালানো হয়। এর আধাঘণ্টা আগে রেলস্টেশনে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় মাদ্রাসাছাত্ররা। তারা স্টেশনের টিকিট কাউন্টারের জানালা ভাঙচুর করে।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি সাহাদাৎ হোসেন শুভন জানান, দুপুরে তারা সাংসদের কার্যালয়ে ছিলেন। মাদ্রাসাছাত্ররা হঠাৎ করে এসে হামলা চালায়। তারা ব্যাপক ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে স্থানীয় লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

অপরদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকারের ব্যক্তিগত কার্যালয়, বেশ কয়েকটি সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনের কার্যালয়ও ভাঙচুর করেছে মাদ্রাসাছাত্ররা। এসব হামলার ঘটনায় পুরো শহরে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

প্রত্যক্ষ্যদর্শীরা জানান, মাদ্রাসাছাত্ররা দুপুর ১২টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে এসে হামলা চালিয়ে টিকিট কাউন্টার, স্টেশন মাস্টারের কক্ষ, প্যানেল বোর্ড ও টেলিফোন ভাঙচুর করে। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ছাত্ররা শহরের টি এ রোডে রেলগেট এলাকায় রেললাইন উপরে ফেলে। তারা গাছের গুঁড়ি ফেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।

এ ঘটনার পর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট রেলপথে ট্রেন বন্ধ রয়েছে। চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর সুবর্ণা এক্সপ্রেস পাঘাচং রেল স্টেশনে, সিলেট থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী কালনী এক্সপ্রেস আজমপুরে এবং চট্টগ্রাম কর্ণফুলী এক্সপ্রেস ভৈরব স্টেশনে আটকা পড়েছে বলে জানা গেছে।

সংঘর্ষে মাদ্রাসাছাত্র নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আগামীকাল বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হরতালের ডাক দিয়েছে জামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা।

১২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল নজরুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শহরে ৪ প্লাটুন বিজিবি কাজ করছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানার সহকারী পুলিশ সুপার তাপস রঞ্জন ঘোষ জানান, নিহত ওই মাদ্রাসা ছাত্রের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। শহরের পরিবেশ শান্ত করার চেষ্টা চলছে।

Facebook Comments