‘ক্রসফায়ার ও হেফাজতে’ মারা গেছে ১৯২ জন: আসক

২০১৫ সালে বিভিন্ন বাহিনীর ক্রসফায়ার ও হেফাজতে মারা গেছেন মোট ১৯২ জন। এর মধ্যে ক্রসফায়ারে মারা গেছেন ১৪৬ জন।

আজ বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)।

আসকের প্রতিবেদনে বলা হয়, পরিবার ও প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ অনুযায়ী এ বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর—এই সময়ের মধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে ৫৫ জনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে পরবর্তী সময়ে আটজনের লাশ পাওয়া গেছে, পাঁচজন ফিরে এসেছেন আর সাতজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন বাহিনীর হাতে হেফাজতে ও ‘ক্রসফায়ারে’ মারা গেছেন ১৯২ জন। এর মধ্যে র‍্যাবের ক্রসফায়ারে ৫০ জন, পুলিশের ক্রসফায়ারে ৭০ জন, র‍্যাব ও বিজিবির ক্রসফায়ারে একজন, র‍্যাব ও পুলিশের ক্রসফায়ারে একজন, বিজিবির ক্রসফায়ারে একজন, আনসারের ক্রসফায়ারে একজন, গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ক্রসফায়ারে ১৪ জন, যৌথ বাহিনীর ক্রসফায়ারে দুজন ও সেনাবাহিনীর ক্রসফায়ারে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

পুলিশের নির্যাতনে সাতজন, গোয়েন্দা পুলিশের নির্যাতনে একজন, র‍্যাবের নির্যাতনে দুজন ও বিজিবির নির্যাতনে একজন মারা গেছেন বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। পুলিশের গুলিতে ২৫ জন, গোয়েন্দা পুলিশের গুলিতে একজন ও বিজিবির গুলিতে দুজন মারা গেছেন। এ ছাড়া থানা হাজতে আত্মহত্যা করেছেন তিনজন, পুলিশ হেফাজতে হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে দুজন এবং র‍্যাব হেফাজতে একজনের মৃত্যু হয়েছে। আর কারা হেফাজতে ৬৯ জন ও গণপিটুনিতে ১৩৫ জন মারা গেছেন।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, এ বছর সারা দেশে ৮৬৫টি রাজনৈতিক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এতে মারা গেছেন ১৫৩ জন আর আহত হয়েছেন ছয় হাজার ৩১৮ জন।

২০১৫ সালে সারা দেশে ২৪৪ জন সাংবাদিক বিভিন্নভাবে নির্যাতন, হয়রানি, হুমকি ও পেশাগত কাজ করতে গিয়ে বাধার মুখে পড়েছেন।

এছাড়া সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে নিহত হয়েছেন ৩২ জন। নির্যাতনে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ৭৩ জন। অপহরণের শিকার হয়েছেন ৫৯ জন। আর অপহরণের পর বিজিবির মধ্যস্থতায় ফিরে এসেছেন ৩১ জন।

এ বছর হিন্দু সম্প্রদায়ের ১০৪টি বাসস্থান ও ছয়টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ এবং ২১৩টি প্রতিমা, পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় ৬০ জন আহত হয়েছেন।

Facebook Comments

Leave a Reply