পাকিস্তানের ৫ নাগরিক সাকার পক্ষে সাক্ষ্য দিতে চায়

sakaস্টাফ রিপোর্টার : ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধি অপরাধে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী পক্ষে সাক্ষ্য দিতে চান পাকিস্তানের বিশিষ্ট ৫ নাগরিক। সাক্ষ্যদের মধ্যে পাকিস্তানের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান ও পরে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করা মিয়া মোহাম্মদ সুমরো রয়েছেন। এছাড়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পক্ষে রয়েছেন সাক্ষ্য দেবার জন্য রয়েছেন ইসহাক খান খাকোয়ানি। যিনি সাবেক কেবিনেট মন্ত্রী ও আম্বার হারুন সায়গল। যিনি ডন মিডিয়া গোষ্ঠীর চেয়ারপার্সন। খবর আল-জাজিরার।
পাকিস্তানী ওই নাগরিকদের বিশ্বাস তারা সাক্ষ্য দিলে মৃত্যুদণ্ড থেকে রেহাই পেতে পারেন সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী। আদালতে তারা বলতে চান যুদ্ধের সময় সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানে ছিলেন না। তিনি তখন পশ্চিম পাকিস্তানে ছিলেন। তারা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর সঙ্গে সে সময় পশ্চিম পাকিস্তানে সাক্ষাৎ করেছেন।
প্রসঙ্গত, পাকিস্তানের এই বিশিষ্ট ব্যক্তিরা মানবতা বিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালেও সালাউদ্দিনের পক্ষে সাক্ষ্য দেবার জন্য আবেদন জানিয়েছিল।কিন্তু ট্রাইব্যুনাল তাদের সেই আবেদন গ্রহণ করেনি। আপিলের সময়েও এই আবেদন গ্রহণ করেনি। আপিল বিভাগ।
সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালের দেয়া রায় বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ। সে অনুসারে তার বিরুদ্ধে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। এখন তার মামলাটি রিভিউ আবেদন শুনানির জন্য আপিল বিভাগে রয়েছে। এই রিভিউ আবেদন খারিজ হয়ে গেলে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হবে। সবকিছু ব্যর্থ হলে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষার আবেদন করতে পারেন সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী। সেক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি তার মৃত্যুদণ্ড রদ করবেন কিনা তা নিয়ে আছে সাংবিধানিক বাধা। কারণ রাষ্ট্রপতিকে বাংলাদেশের সংবিধান মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামিকে ক্ষমা করার ক্ষমতা দেয়া হলেও ১৯৭৩ সালের মানবতা বিরোধী মামলায় দোষী ব্যক্তিদের ক্ষমা না করার কথা বলা হয়েছে।

Facebook Comments

Leave a Reply