৫৭ বছর পর ইতিহাস গড়লেন বেল

baleস্পোর্টস ডেস্ক : জর্জ বেস্টই সেরা উদাহরণ সম্ভবত। ফুটবল ইতিহাসে আলাদা একটি জায়গা বেস্টের জন্য বরাদ্দই। অথচ নিজের দেশকে বিশ্বকাপ তো দূরের কথা, ইউরোতেও নিয়ে যেতে পারেননি উত্তর আয়ারল্যান্ডের এই কিংবদন্তি। ফুটবল ইতিহাসে এমন অনেক বিশ্ব সেরা খেলোয়াড়ের খোঁজ পাওয়া যাবে, ক্লাব ফুটবলে যাঁরা আলো ছড়িয়েছেন, কিন্তু জাতীয় দলের হয়ে বড় কোনো টুর্নামেন্টে খেলাই হয়নি। স্রেফ তাদের দলটা শক্তিশালী ছিল না বলে।
কিন্তু এই তালিকায় কিছুতেই যেতে রাজি ছিলেন না একজন। নিজের ভাগ্য যিনি নিজেই গড়ে নিয়েছেন। ৫৭ বছর পর ওয়েলসকে নিয়ে গেলেন বড় কোনো টুর্নামেন্টে। ইউরোর চূড়ান্ত পর্বে উঠে গেল রিয়াল মাদ্রিদ তারকার জাতীয় দল। ১৯৫৮ সালে ওয়েলস প্রথম ও শেষবারের মতো বিশ্বকাপ খেলেছিল। এর পর বিশ্বকাপ তো বটেই, ১৯৬০ সাল থেকে চালু হওয়া ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপেও কখনো জায়গা পায়নি।
কাল বসনিয়ায় ২-০ গোলে হেরেও চূড়ান্ত পর্বে উঠেছে ওয়েলস। বাছাই পর্বে এটিই ছিল তাদের প্রথম পরাজয়। অন্য ম্যাচে ইসরায়েল সাইপ্রাসের কাছে ২-১ গোলে হেরে যাওয়ায় নিশ্চিত হয়ে গেছে ওয়েলসের চূড়ান্ত পর্ব। রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা বেলের কণ্ঠে কাল ছিল স্বপ্নের ঘোর, ‘এটা আমার ক্যারিয়ারের সেরা অর্জনগুলোর একটি। সেই ছোট বেলা থেকেই এই স্বপ্ন দেখে এসেছি, একদিন জাতীয় দলের হয়ে বড় কোনো টুর্নামেন্টে খেলব। এই স্বপ্ন কিন্তু এখানেই শেষ হয়ে যাচ্ছে না। ফ্রান্সেও (২০১৬ ইউরোর আয়োজক) আমাদের অনেক কাজ বাকি থাকল।’
জাতীয় দলের হয়ে বড় কোনো টুর্নামেন্ট খেলার স্বপ্ন যাঁদের পূরণ হয়নি, ওয়েলসের রায়ান গিগসই সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বড় উদাহরণ। এই তালিকায় মার্ক হিউজ, ইয়ান রাশ, গ্যারি স্পিডরাও আছেন। ৫৭ বছরে ওয়েলসের কেউই পারেননি জাতীয় দলকে বড় কোনো টুর্নামেন্টে নিয়ে যেতে। এত দিন বাছাই পর্ব ছিল ব্রিটেনের অঙ্গভূত এই দেশটির জন্য হতাশার প্রতিশব্দ। ১৯৭৮ সালে বিতর্কিতভাবে তারা বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে জায়গা পায়নি। স্কটল্যান্ডকে অন্যায়ভাবে দেওয়া হয়েছিল একটি পেনাল্টি। আর তাতেই স্বপ্নের সমাধি।
আবার এই পেনাল্টি মিস করেই ১৯৯৪ বিশ্বকাপে জায়গা পেতে পেতেও হারিয়ে ফেলেছে তারা। হিউজের ওয়েলস ২০০৩ ইউরো বাছাই পর্বের প্লে অফেও গিয়েছিল। রাশিয়ার সঙ্গে অ্যাওয়ে ম্যাচে ড্র করে আশার সলতে উসকে দিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ফিরতি ম্যাচে নিজেদের মাঠে হেরে গিয়ে আর চূড়ান্ত পর্ব খেলা হয়নি।
কিন্তু বেল নতুন দিনের ঘণ্টাধ্বনিই বাজালেন। বাছাই পর্বে ছয় গোল করে সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিলেন। ​দেখা যাক, এই স্বপ্নযাত্রা কত দূর যায়!

Facebook Comments

Leave a Reply