দোহার নবাবগঞ্জে অবিরাম বর্ষণে সড়কগুলোর বেহালদশা

road-pic-0277মো.শামীম,দোহার-নবাবগঞ্জ(ঢাকা) থেকে: ঢাকার দোহার নবাবগঞ্জ উপজেলায় গত দুই সপ্তাহে অবিরাম বর্ষণের কারণে পানি জমে সড়ক গুলো বেহাল অবস্থায় পরিণত হয়েছে। দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষ এবং স্কুল-কলেজে পড়–য়া শিক্ষার্থীদের। ফলে যানবাহন চলাচলে বিঘœ ঘটছে।
নবাবগঞ্জ উপজেলার প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানায়, সম্প্রতি টানা বর্ষণের কারনে নবাবগঞ্জ উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের কাচা ও পাকা প্রায় ৫০টির ও অধিক সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগের রাস্তা গুলোতে একই অবস্থা বর্তমান।
দোহার নবাবগঞ্জবাসীর দাবি দ্রুত এসব রাস্তার সংস্কার কাজ না করলে অনেক স্থানেই যান চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। তাদের অভিযোগ এসব রাস্তা মেরামত বা তৈরীর সময় দু’পাশে পানি নিষ্কাষণের কোনো ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় অনেক নতুন রাস্তাও বৃষ্টির পানির ¯্রােতে ভেঙ্গে পড়ছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, নবাবগঞ্জ পাড়াগ্রাম সড়কে বৃষ্টির মধ্যে ট্রাক ও নসিমন করিমন গাড়ী চলাচলের কারণে পিচ, ইট ও খোয়া সরে গেছে। সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। বান্দুরা-নয়নশ্রী রাস্তার অনেকাংশে ধসে গিয়ে চলাচলে বিঘœ ঘটছে। ঢাকা বান্দুরা সড়কের নবাবগঞ্জ চৌরাস্তায় পানি জমে গর্তের সৃষ্টি হয়ে পথচারী ও যান চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। একই অবস্থা ঢাকা বান্দুরা সড়কে বিভিন্ন রাস্তা গুলোতে । চুড়াইন বাজার, গোবিন্দপুর রাস্তা, কোমরগঞ্জ, আগলা, খারশুর ,বাগমারা, বান্দুরা বাসষ্ট্যান্ডসহ প্রায় ২০ কি.মি রাস্তায়ও বড় বড় গর্তের সূষ্টি হয়েছে। গর্ত আর পানিতে একাকার হয়ে পড়ায় মোটর সাইকেল ও নসিমন করিমন গাড়ী পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে।
সিএনজি চালক গনি মিয়া বলেন, কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে রাস্তাঘাট ভেঙ্গে যাওয়ায় গাড়ি চালাতে কষ্ট হচ্ছে। ইঞ্জিনে কাঁদা আর পানি ঢুকে বিকল হয়ে পড়ছে গাড়ি।
এছাড়া দোহারের লটাখোলার করম আলীর মোড় , মৈনট ঘাট , চর মাহমুদপুরের কার্তিকপুর ব্রিজ হতে লটাখোলা ভাঙ্গা সেতু , আউলিয়াবাদ থেকে কার্তিকপুর স্কুল, দোহার পৌর এলাকার জয়পাড়া বাজার, ওয়ান ব্যাংকের মোড় থেকে পবন বেপারির বাড়ি পর্যন্ত প্রায় ১০কি.মি: রাস্তার পিচ ও ইটের খোয়া উঠে গেছে। এতে রাস্তা জুড়ে ডোবার ন্যায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যান চলাচলের সময় কাঁদা পানি ছিটে জামা কাপড় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
দোহারের মৈনটঘাট এলাকার বাস চালক সালাউদ্দিন বলেন, বৃিষ্টতে প্রায় কয়েক কি:মি: কাঁদা জমে গেছে। গাড়ি চলাচলে কষ্ট হচ্ছে। এ অবস্থা থাকলে এ রাস্তায় চলাচল করা যাবে না।
এ ব্যাপারে নবাবগঞ্জ উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী মো. শাহজাহান বলেন, টানা বর্ষণে রাস্তার অনেক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাগুলোর খোঁজ খবর নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশাকরি দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা নেয়া হবে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের মুন্সিগঞ্জ রেঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী তারেক ইকবাল বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা ভাবছি। খুব শীঘ্রই রাস্তাগুলোর সংস্কারের কাজ করার উদ্যোগ নেয়া হবে।

Facebook Comments

Leave a Reply