হরিনাকুন্ডতে যৌতুকের দাবীতে পাশবিক নির্যাতনের শিকার পূর্ণিমা রাণী হাসপাতালে

???????????????????????????????ঝিনাইদহ সংবাদদাতা: ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডুর শাখারীদহ গ্রামের পূর্ণিমা রাণীর (২৫)উপর যৌতুকের দাবীতে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে আহত করেছে পাষন্ড স্বামী সুজন পাল। পূর্ণিমা রাণী পাল কে স্বজনরা উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছে। এব্যাপারে পূর্ণিমা রাণীর পিতা ঝিনাইদহ আদালতে সুজন পালসহ ৩/৪ জনের নামে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

পূর্ণিমা রাণীর পিতা জানান, গত ৬ বছর আগে কুষ্টিয়া জেলার ইবি থানাধীন হরিনারায়নপুর গ্রামের প্রশান্ত কুমার পালের ছেলে সুজন পালের সাথে হরিনাকুন্ডু উপজেলার শাখারীদহ গ্রামের শংকর পালের মেয়ে পূর্ণিমা রাণী পালের পারিবারিক ভাবে ৪ ভরি সোনা ও ৫০ হাজার টাকার যৌতুক দিয়ে বিবাহ হয়। বে-সরকারী ইলেক্ট্রিশিয়ান যৌতুকলোভী সুজন পাল এর ১ কন্যা সন্তান জন্ম হলে আরও ৫০ হাজার টাকার যৌতুকের দাবী করে পাশবিক নির্যাতন চালিয়ে পিতার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। দফায়-দফায় দেন দরবার হয়ে হরিনারায়নপুর গ্রামের মাতুব্বারের মাধ্যমে আবারও পূর্ণিমা রাণী কে শ্বশুরালয়ে যৌতুকলোভী পাষন্ড স্বামী সুজন পাল এর কাছে পাঠিয়ে দেয়। কুষ্টিয়া সরকারী কলেজে অর্থনীতিতে অনার্স পড়–য়া মেয়ে পূর্ণিমা রাণী পাষন্ড স্বামী সুজন পাল এর কাছে থেকে পিতার কাছ থেকে টাকা-পয়সা নিয়ে পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে ও মেয়ে সন্তানকে পালন করেন। কিন্তু পাষন্ড স্বামী সুজন পাল শারদীয়া দূর্গাপূজায় যৌতুক দাবী করে গোলযোগ বাধায় ও দশমির দিন পূর্ণিমা রাণী পাল কে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে আহত করে বাড়িতে আবদ্ধ করে রাখে। পূর্ণিমা রাণীর পিতা খবর পেয়ে হরিনারায়নপুর গ্রামে যেয়ে দফায়-দফায় দেন দরবার করে পূর্ণিমা রাণীকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

Facebook Comments