ঝালকাঠি কারাগার থেকে টাকার বিনিময়ে কারারক্ষীর সহযোগিতায় পালিয়ে যায় মনির

oporadh logoঝালকাঠি সংবাদদাতা : ঝালকাঠি কারাগার থেকে ১৬ জানুয়ারি পালিয়ে যায় একটি সিধেল চুরির মামলায় তিন বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী মনির হোসেন। ঝালকাঠি কারাগার থেকে পালানোর ১২ দিন পর বুধবার বিকেলে চট্টগ্রামের পাহাড়তলীর ঝর্ণাপাড়া এলাকা থেকে মনির হোসেন (৩৫)কে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মনির পালিয়ে যাবার ঘটনায় জেলা সুপার বাদি হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার উপপরিদর্শক গৌতম ঘোষ চট্টগ্রাম থেকে ঝালকাঠিতে এনে শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সামনে হাজির করা হয়। এসময় মনির বলেন, ঝালকাঠি কারাগারের পাশে কারারক্ষী আবদুল খালেক ৩ কিস্তিতে দেয়া ৭০ হাজার টাকার বিনিময়ে পালিয়ে যেতে সহায়তা করে। কারাগারের এরিয়ার প্রধান ফটক সংলগ্ন চায়ের দোকানী “মিতু”র মাধ্যমে পালানোর এক মাস আগে টাকা গুলো লেন দেন হয়। মনিরের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী সদর থানার ওসি (তদন্ত) আঃ সালামের নেতৃত্বে মহিলা পুলিশের সহায়তায় কারাগারের এরিয়ার প্রধান ফটক সংলগ্ন চায়ের দোকানী মিতুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়। পরে মিতুকে ফৌজদারী আইনে দায়েরকৃত মামলার আসামি হিসেবে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। ঝালকাঠি পুলিশ সুপার মোঃ মজিদ আলী তার কার্যালয়ের কন্ফারেন্স রুমে সাংবাদিকদের আনুষ্ঠানিক প্রেসব্রিফিং করেন। এসময় তিনি বলেন, মনির একটি সিধেল চুরি মামলায় ৩ বছরের সাজা খাটছিল। জেল পুলিশের সহায়তায় পালাতে সক্ষম হয়েছিল। তাঁদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করা হবে। এছাড়াও কিছু ক্লু পেয়েছি, সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত  জেল পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামী মনির পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।

Facebook Comments