ঝালকাঠি পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণ

আমির হোসেন, ঝালকাঠি থেকে ফিরে : বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া ঝালকাঠির একটি পৌরসভা ও ৩১টি ইউনিয়ন পরিষদে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতীহীনভাবে ভোট গ্রহণ করা হয়। দিনভর বৃষ্টি উপেক্ষা করেও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দেন ভোটাররা। একটি পৌরসভার ও ৫টি ইউনিয়নে প্রথম বারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট নেওয়া হয়। বাকীগুলোতে ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। এদিকে নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগে ভোট বর্জন করেছে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আফজাল হোসেন রানা। দুপুরে তিনি প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ভোট বর্জনের বিষয়টি জানান।

এদিকে ঝালকাঠি সদরসহ চার উপজেলার ৩১টি ইউপি নির্বাচনে করোনা পরিস্থিতি ও বৃষ্টির কারণে ভোটারের উপস্থিতি কম ছিল। দুপুরে অনিয়মের অভিযোগ এনে নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মিজানুর রহমান হাওলাদার ভোট বর্জন করেন। এ ইউনিয়নে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ঝালকাঠি পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের উদ্বোধন মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুই কাউন্সিলর প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিল ও শফিকুল ইসলাম ও তাদের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলর প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিল, পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আবদুল হালিম তালুকদার ও কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগ নেতা মো. শামীম আহম্মেদ আহত হয়।

এদিকে নলছিটি উপজেলার সুবিদপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য প্রার্থী দোলন মুন্সি ও বাবুল হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরে সেখানে পুলিশ ও বিজিবি গিয়ে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

জলসোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের প্রিসাাইডিং কর্মকর্তা মো. হোসেন বলেন, সকাল থেকে শান্তিপূর্ণ ভোট প্রহণ হয়, তবে দুপুরে সামান্য একটু সমস্যা হওয়ায় কিছুক্ষণ ভোট গ্রহণ বন্ধ ছিল।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, দেশের প্রাচীনতম প্রথম শ্রেণির এ পৌর সভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তিন প্রার্থী। এরা হলেন নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. লিয়াকত আলী তালুকদার, নাড়িকেল গাছ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন রানা ও হাতপাখা প্রতীকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মো. হাবিবুর রহমান।

Facebook Comments