করোনা হাসপাতালের ৭২ শতাংশ শয্যাই খালি

বিশেষ সংবাদদাতা : রাজধানীসহ সারাদেশের হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর চাপ কমে এসেছে। দেশের করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোর ৭২ শতাংশ শয্যা খালি রয়েছে বলে জানা গেছে।

চলমান বিধিনিষেধে গণপরিবহন বন্ধসহ করোনা সংক্রমণ থেকে মুক্ত থাকতে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির ফলে হাসপাতালে করোনা রোগীর সংখ্যা কমেছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য ও রোগতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা। তবে এ নিয়ে আত্মতুষ্টিতে ভুগলে আবারও করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা।

সোমবার (৩ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সম্পর্কিত পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, সারাদেশে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের ৭৩ শতাংশ সাধারণ বেড ও ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিইউ) ৫৪ শতাংশ শয্যা ফাঁকা রয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রাপ্ত পরিসংখ্যানে জানা গেছে, রাজধানীসহ সারাদেশে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য সর্বমোট সাধারণ শয্যা ১২ হাজার ৩০৬টি। তার মধ্যে সাধারণ শয্যায় রোগী ভর্তি রয়েছেন তিন হাজার ২৮৫ জন। একইভাবে সারাদেশে আইসিইউ শয্যা সংখ্যা এক হাজার ৯৭টি। তার মধ্যে বর্তমানে রোগী ভর্তি রয়েছেন ৫০৩ জন। সাধারণ ও আইসিইউ শয্যা সংখ্যার বিপরীতে ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যানুপাতে সারাদেশের করোনা হাসপাতালে ৭২ শতাংশ শয্যা রোগী শূন্য।

সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগরীর ১৫টি সরকারি হাসপাতালে ৩ হাজার ৪৭১ সাধারণ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ২ হাজার ২৮১টি। একইভাবে ২৬২টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ৯১টি শয্যা। এছাড়া হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলাসহ আইসিইউ সমতুল্য ৪৭৪টি ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য শূন্য শয্যার সংখ্যা ১৮৪টি।

একইভাবে ঢাকা মহানগরীতে ২৭টি বেসরকারি হাসপাতালে ২ হাজার ১১৪ সাধারণ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ১ হাজার ৬৩২টি শয্যা। একইভাবে ৫১৬টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ৩৬৩টি শয্যা। এছাড়াও হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলাসহ আইসিইউ সমতুল্য ৩৫৭টি ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য শূন্য শয্যার সংখ্যা ১০৬টি।

ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামে চারটি সরকারি হাসপাতালে ৪৬২ সাধারণ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ২৬৬টি। একইভাবে ৩৩টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ২২টি। এছাড়া হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলাসহ আইসিইউ সমতুল্য ৪৬টি ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য খালি শয্যার সংখ্যা ৩১টি।

এছাড়া চট্টগ্রামে চারটি বেসরকারি হাসপাতালে ৩১০ সাধারণ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ১৯২টি। একইভাবে ৩৮টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে খালি রয়েছে ১০টি। এছাড়া হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলাসহ আইসিইউ সমতুল্য ৮৭টি ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য শূন্য শয্যার সংখ্যা ৪৪টি।

সারাদেশে অন্যান্য বিভাগীয় হাসপাতালে ৫ হাজার ৯৭৯ সাধারণ শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি রয়েছেন ১ হাজার ৩২৯ জন। একইভাবে ২৪৮টি আইসিইউ শয্যার বিপরীতে ভর্তি রয়েছেন ১৪০ জন রোগী। এ হিসেবে ৪ হাজার ৬৫০টি সাধারণ শয্যা ও ১০৮টি আইসিইউ শয্যা ফাঁকা রয়েছে।

Facebook Comments