দ্বিতীয় দিনেও ক্যান্ডি টেস্টে চালকের আসনে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক : মুমিনুলের সেঞ্চুরি ও শান্তর দেড়শ ছাড়ানো ইনিংসে, ক্যান্ডি টেস্টের দ্বিতীয় দিনেও চালকের আসনে বাংলাদেশ। টাইগারদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৪৭৪ রান।

দ্বিতীয় দিনের তৃতীয় ও শেষ সেশনের শুরুতে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল বৃষ্টি। এরপর আলোক স্বল্পতা। স্থানীয় সময় বিকেল ৪টার সময় ক্যান্ডির আকাশ ঢেকে যায় মেঘে। এ কারণে আলোর স্বল্পতা দেখা দিলে তৃতীয় সেশনের দশম ওভারের পর খেলা বন্ধ রাখতে বাধ্য হন ম্যাচ অফিসিয়ালরা।

এসময় টাইগারদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৪৭৪ রান। মুশফিক ১০৭ বলে ৪৩ রান করে অপরাজিত আছেন। লিটন ২৫ করেছেন ৩৯ বলে।

এর আগে ২ উইকেটে ৩০২ রান নিয়ে, আজ ব্যাটিং শুরু করে শান্ত ও মুমিনুল। প্রথম দিনের মতো আত্মবিশ্বাসের ছাপ দুজনের ব্যাটে। মুমিনুল তুলে নেন তার ক্যারিয়ারের ১১তম সেঞ্চুরি। দেশের বাইরে এটাই টাইগার অধিনায়কের প্রথম সেঞ্চুরি।

এদিকে শান্তও তার সেঞ্চুরিকে এগিয়ে নেন। ডাবল সেঞ্চুরির সুযোগ তৈরি করেও শেষপর্যন্ত ১৬৩ রানে কুমারার বলে রিটার্ন ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। তবে তার আগেই তৃতীয় উইকেটে রেকর্ড পার্টনারশিপ পড়ে ওঠে দুজনের মধ্যে।

মুমিনুল-মুশফিক জুটির ২৩৬ ভেঙে নতুন রেকর্ড ২৪২ রান। আর সবমিলে প্রথম দিনের দাপট দ্বিতীয় দিনেও ধরে রেখেছে বাংলাদেশ।

টেস্টে প্রতিপক্ষকে চাপে রাখতে ব্যাট হাতে ব্যাটসম্যানদের বড় রানের কোনো বিকল্প নেই। তামিম-শান্তদের অনুসরণ করে সেই পথেই আছেন এখন মুশফিক লিটন। পঞ্চম উইকেটের জুটিতে অর্ধশত রানের জুটি গড়ে লড়ছেন তারা। তাদের জুটি থেকে আসে ৯১বলে ৫০।

চা–বিরতির আগেই ৪০০ রানের কোটা পেরিয়েছে বাংলাদেশ। নাজমুল দলীয় ৩৯৪ রানের মাথায় আউট হয়ে যাওয়ায় পাল্লেকেলেতে একটা রেকর্ডের দেখা পায়নি বাংলাদেশ। এর আগে বাংলাদেশ কখনোই টেস্টে ২ উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ৪০০ তুলতে পারেনি। ২০১৫ সালে খুলনায় পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের তৃতীয় উইকেট পড়েছিল ৩৯৯ রানে।

তাই সব মিলে বলতে গেলে প্রথম দিনের দাপট দ্বিতীয় দিনেও ধরে রেখেছে টাইগাররা।

Facebook Comments