৩ উপাদানেই ডায়াবেটিস থাকবে নিয়ন্ত্রণে

লাইফস্টাইল ডেস্ক : ডায়াবেটিস এখন জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে দ্রুত বেড়ে চলা রোগগুলোর মধ্যে একটি হলো ডায়াবেটিস। এ রোগ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে প্রতিরোধ করা সম্ভব। এজন্য নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে জীবন-যাপন করা বাধ্যতামূলক।

ডায়াবেটিস হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। ফলে অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এজন্য ডায়াবেটিস রোগীর রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরি। এজন্য প্রয়োজন সুষম ডায়েটের।

মিষ্টিজাতীয় খাবার নিয়ন্ত্রণ ও আয়ুর্বেদিক চিকিত্সার মাধ্যমে ডায়াবেটিস অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, আয়ুর্বেদ হলো ডায়াবেটিসের চিকিৎসার একটি দুর্দান্ত উপায়।

ডায়াবেটিস একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ যা দেহের রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়লে দেহের পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি বন্ধ হয়ে যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, রোগটি প্রতিরোধ করা কঠিন, তবে অসম্ভব নয়।

ডায়াবেটিস রোগে আয়ুর্বেদ কীভাবে কাজ করে জেনে নিন-

আমলকি: শরীরের টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে আমলকির বিকল্প নেই। বলা হয়ে থাকে সবচেয়ে শক্তিশালী আয়ুর্বেদিক ওষুধ এটি। ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ আমলকি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এতে পর্যাপ্ত পরিমাণ ক্রোমিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং আয়রন আছে। যা শরীরকে ইনসুলিন শোষণে সহায়তা করে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে।

ত্রিফলা: শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ত্রিফলা। এটি হজমের জন্য খুব ভালো। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য একটি আদর্শ আয়ুর্বেদিক ওষুধ। এর উপাদানগুলো রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ হওয়া শরীরের অক্সিডেটিভ স্ট্রেস হরমোন কমাতে সহায়তা করে।

দারুচিনি: ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের আরও একটি প্রাকৃতিক ভেষজ হলো দারুচিনি। রক্তচাপ কমাতে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে দারুচিনি। খাওয়ার পরপরই রক্তে শর্করা হ্রাস এবং ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বাড়ায় এটি। এ ছাড়াও দারুচিনি উচ্চ রক্তচাপ কমাতেও সাহায্য করে।

আয়ুর্বেদিক উপায়ে রক্তে চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে আনতে তাজা ফল, শাক-সবজি এবং তেতো ফল খেতে পারেন। নিয়মিত সকালে খালি পেটে হালকা গরম পানি পান করতে হবে। আদা চা পান করার মাধ্যমেও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আনা যায়।

সূত্র: এনডিটিভি।

Facebook Comments