মার্চ ৪, ২০২১

Latest News Before Everyone in Bangladesh

‘বিদেশি মুরগির মাংস খেয়ে’ যুক্তরাজ্যে ৫ জনের মৃত্যু, অসুস্থ কয়েকশ

১ min read

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আমদানি করা ‘দূষিত’ মুরগির মাংস দিয়ে তৈরি বিভিন্ন ধরনের খাবার খেয়ে যুক্তরাজ্যে অন্তত পাঁচজন মারা গেছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ওই মাংসে থাকা ব্যাকটেরিয়ার কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন আরও কয়েকশ’ মানুষ। খবর ডেইলি মেইলের।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলোতে বলা হচ্ছে, মুরগির মাংস খাওয়ার পর সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ৪৮০ জন। এদের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশই এত বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন যে, তাদের হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ৪৪ শতাংশই অনূর্ধ্ব ১৬ বছর বয়সী।

দেশটির জনস্বাস্থ্য পর্যবেক্ষকরা জানিয়েছেন, অন্তত একজনের মৃত্যুর কারণ হিসেবে সালমোনেলা সংক্রমণের বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে কর্তৃপক্ষ। বাকি চারজনের মৃত্যুর সঙ্গেও এই ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের যোগসূত্র রয়েছে, তবে তাদের মৃত্যুর কারণ সালমোনেলাই কি না তা এখনো পরিষ্কার নয়।

ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় যুক্তরাজ্যের ফুড স্ট্যান্ডার্ড এজেন্সি (এফএসএ) এসএফসির মুরগির মাংসজাত দু’টি পণ্য বাজার থেকে তুলে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

ডেইলি মেইলের তথ্যমতে, ব্যাকটেরিয়াযুক্ত এসব মাংস পোল্যান্ড থেকে আমদানি করা হয়েছিল। গত বছর থেকে ইউরোপের দেশগুলো প্রায় ১০০বার পোল্যান্ডের হিমায়িত মুরগির মাংস আমদানির বিষয়ে সতর্কতা দিয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে, ইতোমধ্যেই এ মহাদেশে কয়েক হাজার মানুষ সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ার বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্তদের মধ্যে ৪০০ জনই ইংল্যান্ডে, ৪২ জন স্কটল্যান্ডে, ৩১ জন ওয়েলসে এবং সাতজন নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডে।

ইংল্যান্ডের জনস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ কর্তৃপক্ষ (পিএইচই) জানিয়েছে, সেখানে মুরগির মাংস খেয়ে সালমোনেলায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে।

পিএইচই’র জাতীয় সংক্রমণ সেবার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল প্যাথোজেনস ইউনিটের প্রধান সাহির ঘার্বিয়া বলেন, সালমোনেলায় সাধারণত মৃদু অসুস্থতা দেখা দেয়। যদিও পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু, বৃদ্ধ ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকা অরক্ষিত শ্রেণির মানুষেরা গুরুতর অসুস্থতায় ভুগতে পারেন এবং হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হতে পারে।

তিনি জানান, সালমোনেলা সংক্রমণের লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে ডায়রিয়া, পেটে ব্যথা এবং কখনো কখনো জ্বর ও বমি। কারো শরীরে এধরনের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলেছেন এ বিশেষজ্ঞ।

Facebook Comments