ইসরায়েল-আমিরাত চুক্তিকে হারাম ফতোয়া!

ধর্ম ডেস্ক : ইয়াহুদিবাদী রাষ্ট্র ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের চুক্তি ও কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনকে হারাম ফতোয়া দিয়েছে কাতারভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন অব মুসলিম স্কলারস বা বিশ্ব মুসলিম ওলামা সংঘ। খবর আনাদোলু এজেন্সি।

মুসলমানদের প্রথম কেবলা মসজিদুল আকসা, আল কুদস (জেরুজালেম নগরী) ও ফিলিস্তিনের বিশাল অঞ্চল দখলকারী ইসরাইলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের চুক্তি ও সম্পর্ক স্থাপনকে নিষিদ্ধ ও হারাম ফতোয়া দিয়েছে বিশ্ব মুসলিম ওলামা সংঘের ২০০ আলেম।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের নতুন এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বিশ্বের মুসলিম স্কলারদের নিয়ে গঠিত সর্ববৃহৎ সংগঠন ‘ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন অব মুসলিম স্কলারস’ বা বিশ্ব মুসলিম ওলামা সংঘ।

গত মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) কাতারের রাজধানী দোহায় সংগঠনটির প্রধান কার্যালয়ে ইসরাইল-আমিরাত চুক্তি সম্পর্কিত পর্যালোচনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকে বিশ্বের প্রভাবশালী ২০০ আলেম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অংশগ্রহণ করেন। এ বৈঠক থেকে এ চুক্তিকে হারাম ঘোষণা দেয়া হয়।

বিশ্ব মুসলিম ওলামা সংঘের এ ফতোয়ায় বলা হয়, ‌ইসরাইলের সঙ্গে তথাকথিত এ শান্তিচুক্তি ও কূটনৈতিক সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের বিষয়টি শরিয়তের দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ এবং অকার্যকর বলে সাব্যস্ত হবে। তা ছাড়া এটি বড় অপরাধ, সর্বশক্তিমান আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের সঙ্গে খেয়ানত এবং ফিলিস্তিনের ভূমি-জনগণ ও মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতার শামিল।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এটি শুধু রাজনৈতিক ইস্যু নয়, বরং এটি ঐতিহাসিক পবিত্র আল-আকসা মসজিদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ও জড়িত। ঐতিহাসিক জেরুজালেম নগরীতে অবস্থিত আল-আকসা মসজিদ পবিত্র নগরী মক্কা ও মদিনার পরে মুসলমানদের জন্য তৃতীয় পবিত্রতম স্থান।

দখলদার ইয়াহুদি রাষ্ট্র ইসরাইল, ধীরে ধীরে ফিলিস্তিনিদের উপর আগ্রাসন ও দখল চালিয়ে আসছে। বেশিরভাগ ফিলিস্তিন ভুখণ্ড দখল করে রেখেছে বলেও এ বৈঠকে উল্লেখ করা হয়।

Facebook Comments