শ্রীপুরে ইজারাদারের উপর হামলা, মোটরসাইকেল ভাংচুর ও টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ

রাকিবুল হাসান শ্রীপুর উপজেলা প্রতিনিধি : গাজীপুরের শ্রীপুরে জৈনা বাজারে ইজারাদারের খাজনা আদায়ে বাঁধা ও ইজারাদারকে মারধর, মোটরসাইকেল ভাংচুর এবং টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ২৪ জুন বুধবার রাত ৮ টায় জৈনা বাজারে এ ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় ইজারাদার সাহাব উদ্দিন নগর হাওলা গ্রামের মৃত আমিন উদ্দিনের সন্তান ১.আবুল হাশেম (৬০) মৃত মইজুদ্দিনের সন্তান ২.মোজাম্মেল হক সরকার (৫২), মোজাম্মেল হকের সন্তান ৩. আমিনুল ইসলাম( ২৮), ৪. রিপন সরকার( ২০) ৫.এনামুল সরকার (৩৫) মৃত আফির উদ্দিন ফকিরের সন্তান ৬.শামসুল হক (৫০), নব্বেছ আলীর সন্তান ৭. নাঈম (২৫), বেলাল উদ্দিনের সন্তান ৮. রাসেল মিয়া (৩০), মৃত আমিন উদ্দিনের সন্তান ৯.জাহাঙ্গীর আলম লেবু (৪৫) ও মৃত আঃ কাদেরের সন্তান ১০. আমানউল্লাহ (২৫) সহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে অভিযুক্ত করে শ্রীপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সাহাব উদ্দিন ৪ মাস পূর্বে সরকারিভাবে ইজারা প্রাপ্ত হয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। সাহাব উদ্দিন ইজারা নেয়ার আগে জৈনা বাজারের ইজারাদার ছিলেন আবুল হাশেম। তিনি এবার বাজার ইজারা নিতে না পারায় সাহাব উদ্দিন ইজারা নেয়ায় তাকে বাজারের খাজনা আদায়ে বাধা ও বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছিলো অভিযুক্তরা।
এরই প্রেক্ষিতে ২৪ জুন বুধবার বিকেলে বাজারে ইজারাদার সাহাব উদ্দিনের নিয়োজিত লোকজন খাজনা আদায় করতে গেলে অভিযুক্তরা খাজনা আদায় করতে দিবেনা বলে বাধা নিষেধ ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তাদেরকে তাড়িয়ে দেয়।
পরে বিষয়টি ইজারাদার সাহাব উদ্দিনকে জানালে, তিনি রাত ৮ টার দিকে জৈনা বাজার মইজ উদ্দিন সরকার মার্কেটের সামনে অভিযুক্তদের পেয়ে খাজনা আদায়ে বাধা নিষেধ দেয়ার কারন জানতে চাইলে আবুল হাশেমের নির্দেশে অভিযুক্তরাসহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজন সাহাব উদ্দিনের উপর হামলা চালিয়ে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করতে থাকে। এতে সাহাব উদ্দিন গুরুতর আহত হন।
এসময় তার কাছে থাকা বাজার কালেকশন ও ব্যাবসার ২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয় এবং তার মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। পরে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে অভিযুক্তরা সাহাব উদ্দিনকে হুমকি দিয়ে চলে যায়। পরে খবর পেয়ে তার স্বজনরা তাকে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়।
ঘটনার বিষয়ে জানতে আবুল হাশেমের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও মোবাইলটি বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
শ্রীপুর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান খান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com