কিংবদন্তী গায়কদের অপমান : নোবেল-তাহহিনেশন বাকবিতন্ডায় উত্তপ্ত ফেসবুক

‘নোবেল ম্যান’ ভেরিফাইড ফেসবুক পেজ থেকে বাংলাদেশের কিংবদন্তী গায়কদের গান করার সক্ষমতা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করা থেকে ফেসবুক এখন বেশ সরগরম। ‘দাঁড়াও তোমার লেজেন্ডদের না হয় আমিই শিখাবো’ মন্তব্যেই মূলত দর্শক শ্রোতারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। সামাজিক বিভিন্ন অসঙ্গতি নিয়ে রোস্টার খ্যাত তাহসিন ‘তাহসিনেশন’ই বা তাহলে বসে থাকবেন কেন! এক সময় এই নোবেলকে রোস্ট করতে গিয়েই তাকে অজস্র ফ্যান ফলোয়ার হারাতে হয়েছিল। আজকে তার সমস্ত সুদে আসলে তুলে নিতে তিনি বেপরোয়া যেন।

গত ৩ দিন ধরেই নোবেল আর তাহসিন রীতিমত কাদা ছোড়াছুড়িতে লিপ্ত হয়েছেন। তারা একে অপরকে যথেচ্ছা ভাষায় অপদস্থ করার জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে বেশির ভাগ ফ্যান ফলোয়ার আপাত দৃষ্টিতে নোবেলের বিপক্ষেই দেখা যাচ্ছে।

তাদের বাকবিতন্ডার কিছু সার সংক্ষেপ নিচে তুলে ধরা হল-

১৯ মে দুপুরে সারেগামাপা খ্যাত গায়ক নোবেল যে মন্তব্য করেন, তা হুবহু তুলে ধরা হল-

“দু-বছর আগে জন্ম নিয়েছি আপনাদের ভালবাসা নিয়ে। দু-বছরে ফ্লপ/হিট গানের সংখ্যা দুই।

তোমার মনের ভেতর – অনুপম রায় (National Award winner)
আগুনপাখি – শান্তনু মৈত্র (National Award winner)

তোমাদের লেজেন্ড গত দশ বছর ধরে কয়টা ফ্লপ অথবা হিট রিলিজ করেছে কমেন্টস্ সেকশানে জানাও।

থুক্কু বাংলাদেশে তো গত ১০ বছরে ভালো করে কেউ মিউজিকই করেনি। দাঁড়াও তোমার লেজেন্ডদের না হয় আমিই শিখাবো, কিভাবে ২০২০ সালে মিউজিক করতে হয়।

ইতি
নোবেল”

স্ট্যাটাসটি দেয়ার পর থেকেই তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হয় নোবেলকে। এবং বরাবরই তিনি দাবি করে আসছেন, এটা মূলত একটা ‘তামাশা’ ছিল। প্রথম আলোকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি এ ধরনের দাবিই করেছেন, এবং ফ্যান ফলোয়ার বাড়ানোর জন্য এটা ছিল উদ্দেশ্য প্রনোদিত। যদিও দর্শক-শ্রোতা এটা মানতে নারাজ। নোবেল তার অহংবোধকে ধামা চাপা দেয়ার জন্যেই এখন এটাকে তামাশা বলে চালিয়ে দিতে চাইছেন বলে দর্শকদের দাবি।

Facebook Comments