যে তিন রাশির মেয়েরা সংসারে বেশি সুখী হয়

ফিচার ডেস্ক : রাশি চক্রে মানুষের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পায়। জ্যোতিষশাস্ত্র বলছে, মানুষের রাশি বলে দেয় সে মানুষটি কেমন হবে? সেই মানুষটির স্বভাব কেমন হবে? সে কারোর জীবন সঙ্গী বা সঙ্গিনী হিসাবে কেমন হবে? এইসব অনেক কিছুই জানা যায় কোন মানুষের সম্পর্কে।

১২ টি রাশির মধ্যে তিনটি রাশির মেয়েরা বিবাহের জন্য বেশি উপযুক্ত। তারা স্ত্রী হিসাবে অসাধারণ হয়। তাহলে চলুন জেনে নেই সেই রাশি তিনটি সম্পর্কে।

কর্কট রাশি

এই রাশির মেয়েরা অনেক বেশি আবেগপ্রবণ হয়। সঙ্গীর জন্য থাকে অপরিসীম ও নিঃস্বার্থ ভালোবাসা। আপনি যদি এই রাশির মেয়েকে বিয়ে করবেন বলে ঠিক করে থাকেন তাহলে আপনি একদম ঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই রাশির মেয়ে আপনার জীবনকে সুখে শান্তিতে ভরিয়ে দেবে। কিন্তু কোন জিনিস পছন্দ না হলে অশান্তি করতে পারে। এদের খারাপের থেকে ভালো গুণ বেশি। স্ত্রী হিসাবে এরা যেমন ভালো হয় তেমন মা হিসাবেও এরা অতুলনীয়। নিজের স্বামী ও সন্তানকে এরা খুব ভালোবাসে। এদের হাতে নিশ্চিন্ত ভাবে সংসারের সব দায়িত্ব তুলে দেওয়া যায়। বিনিময়ে এরা শুধু চায় একটু ভালোবাসা ও একনিষ্ঠতা। এগুলি না পেলে এরা খেপে উঠতে পারে।

মেষ রাশি

এই রাশির মেয়েদের একটা আলাদাই গুণ থাকে নিজের সঙ্গীকে তাদের প্রতি গুণমুগ্ধ করে রাখার। মানসিক ভাবে এরা খুব শক্তিশালী হয়। আপনি কখনো ভেঙ্গে পড়লে সে আপনার পাশে থাকবে। তার সঙ্গে আপনাকেও মানসিক ভাবে শক্তিশালী করে তুলবে। এরা খুব বাস্তববাদী হয়। বর্তমানে বাস করতে ভালোবাসে। এরা নিজেদের সব কাজে আপনাকে পাশে রাখতে চাইবে। আপনি যদি এই রাশির কোন মেয়েকে আপনার জীবন সঙ্গিনী হিসাবে ঠিক করে থাকেন তাহলে নিশ্চিন্ত থাকুন। এরা খুব ভালো মা হতে পারে। মা হিসাবে যদিও একটু কড়া ধাঁচের হয়। তাছাড়া মানুষ হিসাবে এরা মাটির মানুষ।

সিংহ রাশি

এদের স্বভাব একটু কড়া প্রকৃতির হয়। এদের অসাধারণ একটি গুণ হল এরা কখনই অহঙ্কারী হন না। আর এদের মধ্যে একটি বিশেষ ক্ষমতা আছে তাদের জীবনসঙ্গিকে সংসারে বেঁধে রাখার। নিজের সঙ্গীকে মুগ্ধ করার জন্য এদের আলাদা কিছু করতে হয় না। যে পুরুষ এদের কদর বোঝে সে নিজেই প্রেমে পড়ে যায়। এদের ভালোবাসা অত্যন্ত গভীর হয়। অন্যকোন রাশির মেয়েদের সিংহ রাশির মেয়েদের মতো ভালোবাসার ক্ষমতা নেই। নিঃস্বার্থ ও খাটি ভালোবাসার আদর্শ একক হল এরা। নিজের পরিবার ও সন্তানকে রক্ষার জন্য ঠিক সিংহের মতো লড়াই করে যেতে পারে এরা।

Facebook Comments