ইসরায়েলে বাতিল হতে পারে মেসি-সুয়ারেজদের ম্যাচ

স্পোর্টস ডেস্ক : ইসরায়েলের সাবেক রাজধানী তেলআবিবে আর্জেন্টিনা এবং উরুগুয়ের মধ্যকার আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচটি বাতিল হতে পারে বলে জানা গেছে। ১৮ নভেম্বর তেলআবিবে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে, শোনা যাচ্ছে ইসরায়েলের পরিবর্তে ম্যাচটি অন্য কোথাও সরিয়ে নেয়া হতে পারে।

সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র ইসরায়েলে গিয়ে ম্যাচ না খেলার জন্য কয়েকদিন আগে থেকে স্পেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর বার্সেলোনায় মেসিদের ক্লাব এফসি বার্সেলোনার সামনে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শণ করছিল একদল শান্তিকামী মানুষ। তাদের দাবি, যারা প্রতিনিয়ত সন্ত্রাসের জন্ম দিচ্ছে, যাদের হাতে মানবতা ভুলুণ্ঠিত, সেই ইসরায়েলে গিয়ে যেন খেলতে না যান মেসি-সুয়ারেজরা।

বিক্ষোভকারীদের দাবি, ইসরায়েল এই একটি ম্যাচ দিয়ে তাদের ওপর থেকে ফিলিস্তিনিদের ওপর হত্যা, খুন, নির্যাতন এবং ধর্ষণের ঘটনা দামাচাপা দিতে চায়। তারা নিজেদের প্রমাণ করতে চায় একটি শান্তিকামী রাষ্ট্র হিসেবে। কিন্তু তার মূলতঃ পৃথিবীতে সবচেয়ে বড় সন্ত্রাস তৈরিকারী রাষ্ট্র।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যাকার খুব কাছেই নিউ ব্লুমফিল্ড স্টেডিয়ামে ম্যাচটি মাঠে গড়ানোর কথা। কিন্তু ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিন দ্বন্দ্বের কারণেই মূলতঃ এই ম্যাচটি সরিয়ে নেয়ার চিন্তা চলছে।

গত কয়েকদিন ধরেই ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনের মধ্যে তুমুল যুদ্ধ চলছে। ফিলিস্তিনের পক্ষ থেকে একের পর এক রকেট হামলায় বিপর্যস্ত ইসরায়েল। পাল্টা জবাবে ইসরায়েলও রকেট ছুঁড়তে শুরু করে। যার ফলে প্রচুর মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। শুধু তাই নয়, ফিলিস্তিনের ওপর বিমান হামলা পর্যন্ত চালাচ্ছে ইসরায়েলিরা।

ফিলিস্তিন এবং ইসরায়েলের মধ্যে চলমান এই উত্তেজনা এবং পাল্টা-পাল্টি হামলার মধ্যে ম্যাচ নিয়ে উদ্বিগ্ন উরুগুয়ে এবং আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশন। এ কারণে, তারা চেষ্টা করছে, ম্যাচটি সরিয়ে নিতে।

তবে, পোল্যান্ডের বিপক্ষে ইসরায়েলের ইউরো বাছাইয়ের যে ম্যাচটি ১৬ নভেম্বর জেরুজালেমে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে, সেটাকে শঙ্কামুক্ত হিসেবে ঘোষণা করা হচ্ছে এবং ম্যাচটি সঠিক সময়েই মাঠে গড়াবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Facebook Comments