বেনাপোলে গাড়ির চাপায় স্কুল ছাত্রীর পা বিচ্ছিন্ন, সড়ক অবরোধ

এস এম মারুফ, বেনাপোল প্রতিনিধি : শার্শার নাভারণ পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের নিপা নামে এক স্কুল ছাত্রীর সরকারী জিপ গাড়ির চাপায় শরীর থেকে পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এ ঘটনায় যশোর-বেনাপোল মহাসড়কে ওই গাড়িটি পুড়িয়ে দিয়ে সড়ক অবরোধ করে রেখেছে ছাত্র/ছাত্রীরা। রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছে এলাকাবাসী।

দুর্ঘটনার শিকার নিপা নাভারনের বুরুজবাগান গ্রামের রফিকুলের মেয়ে।

স্থানীয়রা জানায়, বুধবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে ওই স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী নিপা (১২), একই শ্রেণির স্মৃতি ও ৯ম শ্রেণির ছাত্রী রিপা ভ্যানে চড়ে স্কুলে যাচ্ছিল। এসময় দ্রুতগতিতে যশোর থেকে একটি সরকারি জিপ গাড়ি বেনাপোলের দিকে যাওয়ার সময় নাভারণ বাজার সংলগ্ন পৌছালে ওই তিন ছাত্রীর ভ্যানে ধাক্কা দিলে তারা তিনজন ভ্যান থেকে ছিটকে পড়ে। এসময় সপ্তম শেণির ছাত্রী নিপার পায়ের উপর দিয়ে গাড়ির চাকা উঠে গিয়ে তার শরীর থেকে পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এবং অপর দুই ছাত্রী গুরুতর আহত হয়। নিপাসহ আহত ওই দুই শিক্ষার্থীকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার পরপরই স্থানীয় এলকাবাসী ও স্কুল কলেজের ছাত্র/ছাত্রীরা সড়ক অবরোধ করে রাখে। এসময় ঘাতক গাড়িটি পুড়িয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা।

শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল, উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মঞ্জু ও শার্শা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছে।

শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল বলেন, ঘটনাটি খুব দুঃখ জনক।

নাভারন পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোকারম হোসেন বলেন, বেপরোয়া ভাবে যে চালক গাড়ি চালিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে তার জন্য আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ ও দ্রুত বিচারের দাবিতে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কে ছাত্র/ছাত্রী ও এলাকারবসীর বিক্ষোভ চলছে।

Facebook Comments