সুনামগঞ্জে ৩ উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ চরম দুর্ভোগে

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর সড়কের পলাশগাঁও এলাকার তেরাকান্দা নদীর ওপর সড়ক ও জনপথ (সওজ)-এর বেইলি ব্রিজ (সেতু) ট্রাক দুর্ঘটনায় ধ্বসে যাওয়ায় এ তিন উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

জেলা শহর সুনামগঞ্জ হয়ে সারাদেশে সড়ক পথে চার চাকার বাহনে যোগাযোগের একমাত্র ভরসা সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভপুর ও তাহিরপুর সড়কের ওপর সওজ’র নির্মিত বেইলি সেতু। এ সেতুটি গত বৃহস্পতিবার ট্রাক দুর্ঘটনায় ধ্বসে যায় ওই দুর্ঘটনায় দুই শ্রমিকও নিহত হন। এর ফলে কার্যত আজ শনিবার পর্যন্ত ওই সড়কের এপার ওপারে থাকা বাস, ট্রাক, প্রাইভেটকারসহ সব ধরণের যানবাহন আটকে পড়ে আছে।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রসঙ্গত: গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভরপুর সড়কের পলাশগাঁও এলাকায় চট্রগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা তাহিরপুরের বিন্নাকুলিতে জাদুকাটা নদীর ওপর নির্মাণাধীন সেতুর জন্য লোহাজাতীয় সামগ্রী নিয়ে যাচ্ছিল একটি ট্রাক। তেরাকান্দা নদীর বেইলি সেতুতে ওঠামাত্র সেতুটি ধ্বসে পড়ে ট্রাকটি উল্টে খাদে পড়ে যায়। এরপর থেকেই বেইলি সেতুর ওই সড়কে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ কারনে জেলার বিশ্বম্ভপুর, তাহিরপুর ও তাহিরপুর উপজেলা সদর সীমান্তসড়ক ব্যবহার করে পার্শ্ববর্তী ধর্মপাশা-মধ্যনগর থানা এলাকার কয়েকলাখ মানুষ জেলা শহর হয়ে সারাদেশে সড়ক পথে যাতায়াতে নতুন করে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

তাহিরপুর কয়লা আমদানিকারক সমিতির সাচিব রাজেশ তালুকদার জানান, তাহিরপুরসহ ওই তিন উপজেলা ও অপর এক থানার লোকজন ছাড়াও তাহিরপুরে বালি পাথর ব্যবসা, বড়ছড়া-চারাগাঁও-বাগলী ওই তিনটি শুল্ক ষ্টেশনে কয়লা চুনাপাথর ব্যবসার সুবাধে ব্যবসায়ীরা যাতায়াত অসুবিধায় পড়ে আর্থিক ভাবেও ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। একই সঙ্গে সারাদেশ থেকে প্রতিনিয়ত ভ্রমণে দেখতে আসা মেঘালয় পাহাড়ের কোলঘেষা টেকেরঘাট, বারেকটিলা, জাদুকাটা নদী, শিমুল বাগান ও টাঙ্গুয়ার হাওরের হাজারো পর্যটক গত তিন দিন ধরেই যাতায়াত ভোগান্তির মুখে পড়েছেন।,

তাহিরপুর, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সদরসহ অন্তত ওই দুটি উপজেলার ২৫ থেকে ৩০টি গ্রামীণ হাটের ব্যবসায়ীদের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী সংগ্রহ ও ক্রেতাগণ পণ্য সরবরাহ করতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েছেন।

বিশ্বম্ভরপুরের বাদাঘাট দক্ষিণ ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান এরশাদ মিয়া ও পলাশ ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাইয়ুম মাষ্টার সেতুটি দ্রুত মেরামতের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘জেলা শহরসহ সারা দেশের একমাত্র এই যোগাযোগ সড়ক দিয়ে এভাবে দিনের পর দিন যান চলাচল বন্ধ থাকলে কেবল মালামাল নয়, অনেক অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ-সিলেটসহ অন্যত্র নিয়ে যেতেও নানামুখী পরিবহন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

বিশ্বম্ভরপুর থানার ওসি মাহবুবুর রহমান বলেন, পথচারীদের নিরাপত্তার জন্য ওই সেতুর পাশে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। কিন্তু সেতুর মেরামত দ্রত সম্পন্ন করা প্রয়োজন।’

সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী অমিয় চক্রবর্তী শনিবার দুপুরে বলেন, ‘সড়ক ও জনপথ বিভাগ এই বেইলি ব্রিজ (সেতু) মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছে। আপাতত ছোট যানবাহন চলাচলের জন্য একটি বিকল্প সড়ক করে দেওয়া হবে এবং ৭ থেকে ৮ দিনের মধ্যেই বেইলি সেতুর কাজ শেষ করা হবে।’

Facebook Comments