দুদক কর্মকর্তারা চাইলে অনেক কিছু সম্ভব: চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক : দুর্নীতি দমন কমিশনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা নিজেদের চেয়ারকে (পদ) ভালো না বেসে কাজকে ভালোবাসলে গভীর রাতেও আত্মসাৎকৃত অর্থ উদ্ধার সম্ভব বলে মনে করেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

বুধবার দুদক কার্যালয়ে ‘বিশ্ব ঐতিহ্যের প্রামাণ্য দলিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় নিজের অধীনস্ত কর্মকর্তাদের পরামর্শদানকালে তিনি এই মন্তব্য করেন।

গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাতে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে ভূমি অধিগ্রহণের নামে আত্মসাৎকৃত প্রায় পাঁচ কোটি টাকার মধ্যে নগদ ৯২ লাখ টাকা উদ্ধার করেছে দুদকের একটি দল। জেলার হিসাব রক্ষণ অফিসের অডিটরের বাসা থেকে উদ্ধারকৃত ওই অর্থ সংস্থাটির ইতিহাসে সর্বোচ্চ নগদ উদ্ধার বলে দুদকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

দুর্নীতি রোধে কাজকে ভালোবেসে গভীর রাতেও নগদ টাকা উদ্ধারের ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের সাধুবাদ জানিয়ে চেয়ারম্যান বলেন, ‘দুদক কর্মকর্তারা ইচ্ছা করলে তাদের পক্ষে অনেক কিছুই করা সম্ভব।’

এসময় প্রত্যেক কর্মকর্তাকে নির্ভয়ে ও নিঃসংকোচ-চিত্তে দায়িত্ব পালনের উৎসাহ দেন তিনি। বলেন, ‘দায়িত্ব পালন করবেন নির্ভয়ে। চেয়ারকে ভালোবেসে কোনো লাভ নেই। এ চেয়ার ক্ষণস্থায়ী। দুর্নীতি রোধ করতে পারলে মানুষের ভালোবাসা পাবেন, যেটা চিরস্থায়ী।’

‘নিজেরা শতভাগ দুর্নীতিমুক্ত থেকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সর্বশক্তি নিয়োগ করুন, যাতে দুর্নীতির টাকা কেউ ভোগ করতে না পারে।’

দুদকসহ সব সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিজেদের দুর্নীতিপরায়ণ মানসিকতার পরিবর্তন করার আহ্বান জানান দুদক প্রধান। বলেন, ‘আমরা কেউ চিরদিন বাঁচবো না। এমনকি অর্থ, বিত্ত, পরিবার পরিজন কোনো কিছুই একসময় কোনো কাজে লাগে না। কিন্তু আমাদের কর্ম যা সমাজকে পরিশুদ্ধ করে তা চিরস্থায়ী।’

ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে সহায়ক কাজগুলো সবাইকে সম্মিলিতভাবে করার জন্য অনুরোধ করেন তিনি।

বাঙালি জাতি মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা পেলেও, পরিপূর্ণ মুক্তি এখনো পায়নি বলে মনে করেন দুদক প্রধান।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণে স্বাধীনতা ও মানুষের মুক্তির কথা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতা আমরা পেয়েছি কিন্তু মুক্তি এখনো পরিপূর্ণভাবে হয়নি। মুক্তি মানে অর্থনৈতিক মুক্তি, সামাজিক মুক্তি ও প্রশাসনিক মুক্তি।’

‘মুক্তির প্রধান অন্তরায় হচ্ছে দুর্নীতি। মানুষের মুক্তির জন্য দুর্নীতি দমনে যা যা করা দরকার সবই আমরা করতে চাই।’

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন দুদক কমিশনার ড. নাসিরউদ্দীন আহমেদ, এ এফ এম আমিনুল ইসলাম, সচিব ড. মো. শামসুল আরেফিন, মহাপরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমান, মহাপরিচালক মো. জাফর ইকবাল, পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছির, উপপরিচালক সেলিনা আক্তার প্রমুখ।

Facebook Comments