নির্দলীয় সরকার ছাড়া অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না

khaleda_jia_24-8-13একুশেরআলো২৪ডেস্ক: জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে টেলিফোনে আলাপের পর গতকাল সন্ধ্যায় বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গেও কথা বলেছেন । বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বান কি মুন বলেছেন, সব দলের অংশগ্রহণে সবার কাছে একটি গ্রহণযোগ্য, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায় জাতিসংঘ। এ জন্য বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি জাতিসংঘ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। জবাবে খালেদা জিয়া বলেছেন, নির্দলীয় সরকার ছাড়া বাংলাদেশে অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। নির্দলীয় সরকার ছাড়া আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না। সংকট সমাধানে সংলাপ কিংবা আলোচনার বিকল্প নেই। বিএনপি যেকোনো ধরনের সংলাপ ও আলোচনায় প্রস্তুত রয়েছে।
সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশনও জরুরি বলে জানান খালেদা জিয়া।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গুলশান কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ টেলিফোন সংলাপের কথা জানান। টেলিফোনে খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবনের নম্বরে সন্ধ্যা পৌনে ৭টা থেকে সোয়া ৭টা আধাঘণ্টা জাতিসংঘ মহাসচিব আগামী নির্বাচন ও বর্তমান রাজনৈতিক সংকটসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। এ সময় পাশে ছিলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
এর আগে সকাল ১১টায় জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে।
সূত্র জানায়, জাতিসংঘ মহাসচিব বাংলাদেশে কোনোভাবেই যাতে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারে বিরোধীদলীয় নেতাকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে এ ব্যাপারে সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারে খেয়াল রাখতে অনুরোধ করেছেন। সূত্র মতে, জবাবে খালেদা জিয়া বলেছেন, এ বিষয়ে সরকারেরই দায়িত্ব বেশি। তারা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায়ের চেষ্টা করছেন এবং করবেন।
সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, জাতিসংঘের মহাসচিবকে বিরোধীদলীয় নেতা বলেছেন, সংকট সমাধানে সংলাপ কিংবা আলোচনার বিকল্প নেই। বিএনপি যেকোনো ধরনের সংলাপ ও আলোচনায় প্রস্তুত রয়েছে। তিনি জাতিসংঘের মহাসচিবকে জানিয়ে দিয়েছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে বিএনপি যাবে না।
মির্জা ফখরুল বলেন, জাতিসংঘের মহাসচিব বিরোধীদলীয় নেতাকে জানিয়েছেন, বাংলাদেশে তারা একটি সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ও সব দলের দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায়। এজন্য বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি জাতিসংঘ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।
জবাবে বিরোধীদলীয় নেতা জাতিসংঘের মহাসচিবকে বলেছেন, নির্দলীয় সরকার ছাড়া দেশে অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য নির্দলীয় সরকারের কোনো বিকল্প নেই। সেই সঙ্গে একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশনও জরুরি।
মির্জা ফখরুল জানান, জাতিসংঘ মহাসচিব বিরোধীদলীয় নেতাকে বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে তার উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আগামী নির্বাচন যাতে সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে হয় সেজন্য আমি উদ্যোগ নিয়েছিলাম। সেই প্রচেষ্টা বেশিদূর এগোয়নি বলে তিনি তার উদ্বেগের কথাও বিরোধীদলীয় নেতার কাছে প্রকাশ করেন।
সূত্র জানায়, জাতিসংঘ মহাসচিব খালেদা জিয়াকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংকট নিরসনে জাতিসংঘ সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা করে যাবে। সরকারকে যৌক্তিক সমাধানে আসতে সম্মত করাতে প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক মহলকে সঙ্গে নিয়ে জাতিসংঘ কাজ করবে বলেও জানান বান কি মুন।
সূত্র আরও জানায়, একই সঙ্গে বাংলাদেশের সুশীল সমাজ ও বুদ্ধিজীবী মহলের মতামতও জানার চেষ্টা করবে জাতিসংঘ।
নির্দলীয় সরকারের দাবিতে বিরোধী জোটের আগামী দিনের রাজপথের কঠোর কর্মসূচি আসার প্রেক্ষাপটে জাতিসংঘ দ্রুত একটি শান্তিপূর্ণ সমাধান দেখতে চায় বলেও তিনি জানান।

Facebook Comments