শুধু নির্বাচন নয়, উপজেলা পরিষদ কার্যকর করার আহ্বান সুজনের

sujonঢাকা, ১৮ ফেব্রুয়ারি: স্বাধীনতার ৪৩ বছর পরও দেশে স্বশাসিত স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেনি। শুধু উপজেলা নির্বাচনই যথেষ্ট নয়, এর সাথে পরিষদগুলোকে কার্যকর করতে হবে। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ ও স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালী ও কার্যকর করা সাংবিধানিক নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে।

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর প্রগতি সম্মেলন কেন্দ্রে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)-এর উদ্যেগে  ‘চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন এবং স্থানীয় সরকার সংস্কার প্রসঙ্গ’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব কথা বলেন।
বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের পরিচালনায় গোলটেবিল বৈঠকে আলোচনায়  অংশ নেন সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার, সুজন নির্বাহী সদস্য আলী ইমাম মজুমদার, রাজনীতিবিদ রুহিন হোসেন প্রিন্স, হুমায়ূন কবীর হিরু, সাদেক সিদ্দিকী, এম এস সিদ্দিকী, আবুল হাসনাত, শিরীন বানু, নালিতাবাড়ী উপজেলার প্রাক্তন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বদিউজ্জামান বাদশা প্রমুখ। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সুজন নির্বাহী সদস্য ও স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ।
সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, উপজেলা নির্বাচন হওয়া জরুরী তবে নির্বাচন হলেই বিদ্যমান সমস্যার সমাধান হবে না। ক্ষমতার দ্বন্দ্বের অবসান, স্থানীয় উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে প্রকৃত স্থানীয় মানুষের কাছে পৌঁছানো এবং তৃণমূলের মানুষের জীবন জীবিকায় সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য পরিষদগুলোকে কার্যকর করতে হবে। সংসদ সদস্যকে উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা বানিয়ে তাদের পরামর্শ গ্রহণ করা বাধ্যতামূলক করে যে কর্তৃত্ব দেওয়া হয়েছে তা অনাকাঙ্খিত বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
রাজনীতিবিদ রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন,এবারের নির্বাচনেও মনোনয়ন বানিজ্য হয়েছে যা অনাকাক্ষিত। এমপিতন্ত্রের হাতে বন্দী উপজেলা। এমপিদেরকে আইন প্রণয়ন এবং রাষ্ট্রের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনার ভার স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে রাখতে হবে। এজন্য উপজেলাকে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্ধ এবং দায়-দায়িত্ব দিতে হবে।
সুজন নির্বাহী সদস্য আলী ইমাম মজুমদার বলেন, সংসদ সদস্যরা উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা হওয়ায় উপজেলা পরিষদের কার্যকারিতা বিপন্ন হচ্ছে। উপজেলা নির্বাচন রাজনৈতিকভাবে হওয়ায় প্রক্রিয়াটা যথাযথ ফল দিবে কি না, তা আমাদের ভেবে দেখা দরকার।
মূল প্রবন্ধে অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ বলেন, স্থানীয় নির্বাচন হলেও এ নির্বাচন জাতীয় রাজনীতির একটি টার্নিং পয়েন্ট হতে পারে। ক্ষমতাসীন এবং ক্ষমতার বাইরের সকল দল স্থানীয় নেতৃত্বে সাংগঠনিকভাবে নিজেদের সংহত করার সুযোগ পাচ্ছে। আইন পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে নির্দলীয়ভাবে অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচন কমিশন উদ্যোগী হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
সাবেক সংসদ সদস্য হুমায়ুন কবীর হিরু বলেন, রাজনৈতিক মতলবে এ উপজেলা নির্বাচন হচ্ছে। স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে হলে মতলববাজী পরিহার করে রাজনৈতিক সদিচ্ছার মাধ্যমে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিতে হবে।
রাজনীতিবিদ সাদেক সিদ্দিকী বলেন, এমপিদের মধ্যে দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থাকলে এমপিদের উপদেষ্টা পদ সমস্যা নয়। এমপিরাও জনগণের দ্বারা নির্বাচিত, তাদেরও জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা আছে। সকল নির্বাচিত প্রতিনিধিই সম্মিলিতভাবে জনগণের দাবী পূরণে কাজ করতে হবে।
রাজনীতিবিদ শিরীন বানু বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো তাদের নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাজে লাগাতে চায় তাই স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে চায় না। রাজনৈতিক দলগুলো সরকারে গেলে তাদের পার্টি সেক্রেটারীকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বানানো হয় যাতে স্থানীয় পর্যায়কে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

Facebook Comments