৪ ঘন্টা অবরুদ্ধ থাকার পর মুক্ত হলেন রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য

rokeia_university_-একুশেরআলো২৪ডেস্ক: রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বেতনসহ ৭ দফা দাবীতে আন্দোলনে থাকা শিক্ষক ও কমর্চারীদের সাথে কোন ফলপ্রসু আলোচনা না হওয়া এবং বকেয়া বেতনের প্রতিশ্রুতি না পাওয়াই আন্দোলনকারীরা বিকেল ৪টা থেকে উপাচার্য প্রফেসর ড. নূর উন নবীকে নিজ অফিস রুমে তালা বদ্ধ করে রাখে। এরপর রাত ৮টার দিকে দীর্ঘ ৪ঘণ্টা পর অবমুক্ত হন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি।

আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিদের চাকুরি স্থায়ীকরণ এবং বকেয়া বেতন ভাতার প্রদানের আশ্বাসে আন্দোলনকারীরা রাত ৮টায় প্রশাসনিক ভবনের তারা খুলে দেয়। পুলিশ এবং আন্দোলনকারীরা বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় প্রশাসনিক ভবনে তালা দিয়ে তাকে অবরুদ্ধ করে আন্দোলনকারীরা। পরে রাত ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক, কর্মকতা, সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবীরসহ বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এক রুদ্ধদার বৈঠকে বসে। বৈঠকে সমঝোতা হলে আন্দোলনকারীরা তালা খুলে দেয়।

অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কায় ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

আন্দোলনকারীদের নেতা আবুল কালাম আজাদ জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে ৬৭৪ জনের বেতন দেয়া না হলে ৩৩৬ জনকে আগেই বেতন দেয়া হবে না। আগামী ১ মাসের মধ্যে চাকুরী স্থায়ী করতে হবে। বকেয়া বেতন ভাতা দিতে হবে। এসব দাবী তিনি মেনে নিলে আমরা তালা খুলে দেই।

রংপুর সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবীর জানান, আলোচনা ফলপ্রসু হলে আমরা স্যারকে বাসায় পৌছে দেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. নুর উন নবী জানান, আন্দোলনকারীদের  সাথে কথা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরি কমিশনের সাথে আলাপ আলোচনা করে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

Facebook Comments