সৌদি বাধায় হজ বঞ্চিত কাতারের নাগরিকরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : এবারের হজে অংশ নিতে পারেননি কাতারের নাগরিকরা। পাঁচ শ কাতারের নাগরিক কুয়েতের মাধ্যমে হজে অংশগ্রহণ করলেও কাতারের নাগরিকরা এবার হজে অংশ নিতে পারেননি। কাতারের হাজার হাজার মুসলমান হজ করতে চাইলেও দুই দেশের সম্পর্কের টানাপড়েনের কারণে তা শেষপর্যন্ত সম্ভব হয়নি।

কাতারের সঙ্গে তিক্ত সম্পর্ক এখনো বজায় রেখেছে সৌদি আরব। এ কারণে এবছর কাতারের নাগরিকরা অংশ নিতে পারছেন না। এ বিষয়ে সৌদি এক কর্মকর্তা জানান, এ বছর হজ পালনে কাতারবাসীর জন্যে কোনো সুযোগ থাকছে না।

কাতারের নাগরিকদের হজ পালনের জন্য নিবন্ধন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া সৌদিতে কোনো কূটনৈতিক মিশন না থাকায় ভিসা নিশ্চতাও দেয়নি সৌদি। কাতারের সঙ্গে বিমান চলাচলও বন্ধ রেখেছে দেশটি। সৌদির নেতৃত্বে চার দেশ কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে তা আবার উঠিয়ে নিলেও আকাশ নিষেধাজ্ঞাসহ বেশ কয়েকটি এখনো কার্যকর রয়েছে।

কাতারের নাগরিকদের হজ পালনে সৌদিতে আসতে দেয়া হচ্ছে না বলে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা অস্বীকার করেছে সৌদি আরব। সৌদি কর্তৃপক্ষ বলেছে, তারা হজ পালনে কাতারের নাগরিকদের স্বাগত জানাচ্ছে। তবে কিভাবে তারা এমনটি করছে বা কি পদ্ধতিতে কাতারের নাগরিকেরা সৌদিতে প্রবেশ করছে তার কোনো ব্যাখ্যা দেননি তারা।

সৌদি রাজ পরিবারের প্রভাবশালী গণমাধ্যম আল আরাবিয়্যাহ জানিয়েছে, কাতার থেকে ৫০০ হাজি এবারের হজ পালনে এসেছে। আর তাদেরকে স্বাগত জানিয়েছে সৌদি। তবে কাতারের সেসব হাজিরা জানিয়েছেন, তারা কুয়েতের মাধ্যমে নিবন্ধন করে হজে এসেছেন। তারা কাতারের নাগরিক হিসেবে নিবন্ধন করেননি। আর কুয়েতের মাধ্যমে নিবন্ধন করার সক্ষমতা যাদের নেই তারা কাতারেই থেকে গেছেন। তারা হজ পালন করতে আসতে পারেননি।

কাতারের এক কর্মকর্তা জানান, সীমান্ত বন্ধ এবং দু’দেশের মধ্যে কূটনীতিক মিশন নাই। এছাড়া দুই দেশের মাঝে সরাসরি বিমান চলাচল না থাকার অর্থ হলো কাতারের নাগরিকরা হজ পালনে যেতে পারবে না।

২০১৭ সালে কাতারের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি জোট। এছাড়া সৌদির নেতৃত্বে চার দেশ কাতারের ওপর সকল প্রকার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। হঠাৎ করে এমন নিষেধাজ্ঞার পর ব্যাপক সংকটে পড়ে আমদানি নির্ভর দেশ কাতার। সেসময় খাদ্যদ্রবসহ প্রয়োজনীয় সকল কিছু দিয়ে কাতারের পাশে দাঁড়ায় তুরস্ক। চারমাস পরে সেই নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলেও এ থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে কাতার। প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে গরুর খামার, গবাদি পশুর খামারসহ প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই। প্রতিবেশী দেশগুলোর সহযোগীতা ছাড়ায় ঘুরে দাঁড়িয়েছে কাতার। সূত্র: এএফপি, আল আরাবিয়্যা।