সেলফ মোটিভেটেড মেকআপ আর্টিস্ট সাদিয়া আফরোজ

কালোকে ফর্সা করার গৎবাঁধা প্রক্রিয়া থেকে বেরিয়ে এসে স্কিন টোন ঠিক রেখে তাকে আরো উজ্জ্বল, আরো মোহময় করার ব্যাপারে প্রত্যয়ী নারী সাদিয়া আফরোজ। সম্পূর্ন স্বশিক্ষায় প্রশিক্ষিত সাদিয়ার পথচলাটা মোটেই সহজ ছিল না আজকের অবস্থানে আসতে।

যেমনি হুট করে পুরোদস্তুর প্রোফেশনালিজমের প্রতিচ্ছবি পাওয়া যাচ্ছে, আসলে এর পেছনে রয়েছে অনেক অনেক ছোটবেলার গল্প। মেকআপকে প্রোফেশনে আনার আগে ছোটবেলায় মায়ের হাতে কম মার খেতে হয়নি সাদিয়াকে! একবার এক কাজিনের বিয়েতে, যখন কিনা সাদিয়ার বয়স মাত্র চৌদ্দ কি পনেরো। বৌ সাজিয়ে রীতিমত হুলস্থুল পড়ে যায় বিয়েবাড়িতে। এরপর শুধুই সামনে এগিয়ে যাওয়া। মেকআপ কিংবা বিউটি আর্টিস্ট হিসেবে বন্ধুমহলে জমে ওঠা সুখ্যাতিটাই তাকে পেশাদার হতে প্রশমিত করে।

আত্মীয়, আশেপাশের প্রতিবেশী, বন্ধুবান্ধবের গন্ডী পেরিয়ে গ্রাজুয়েশনের পর সাদিয়ার শতভাগ মনযোগ এখন মেকআপ প্রোফেশনকে আরো সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। এখন তো তার কাছে প্রশিক্ষিত মেকআপ আর্টিস্টের সংখ্যাও নেহাত কম নয়। মাত্রই এক বছর হতে চলা “লা বেলেজা ডিফাইন্ড বাই সাদিয়া” ফেসবুক পেজটা যেন সাদিয়া আফরোজের রংতুলি দিয়ে আঁকা মেকআপের ক্যানভাস। ভবিষ্যতে একটা স্টুডিও দেয়ার বিষয়টাও মাথায় আছে তার। ব্রাইডাল কিংবা পার্টি অথবা যে কোন ফটোশ্যুটের জন্য ন্যাচারাল লুককে অক্ষত রেখে সাজতে চাইলে যোগাযোগ করতে পারেন সাদিয়ার বিজনেস পেজটায়।