সিলেটে বাসাবাড়ি থেকে নামছে পানি, আশ্রয়কেন্দ্র ছাড়ছেন মানুষ

সিলেটে বাসাবাড়ি থেকে নামছে পানি, আশ্রয়কেন্দ্র ছাড়ছেন মানুষ

নিউজ ডেস্ক : সিলেটে ১৩ উপজেলা ও মহানগরের বাসাবাড়ি থেকে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যার পানি নামতে শুরু করেছে। তবে বন্যার পানি নামলেও বাসাবাড়ি ও দোকানপাটের সামনে এখনো পানি রয়ে গেছে। একই সঙ্গে পানিতে ভিজে বাসাবাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের অনেক জিনিসপত্রের ক্ষতি হয়েছে। গত ১৫ জুন থেকে শুরু হওয়া বন্যায় শনিবার (২৫ জুন) পর্যন্ত ১১দিনে সিলেট জেলায় ১৬ জনের প্রাণহানি হয়েছে।

এদিকে, পানি নেমে যাওয়া অব্যাহত থাকায় ও বন্যাকবলিত এলাকার বাসাবাড়িতে ডাকাত আতঙ্ক দেখা দেওয়ায় আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে নিজ নিজ বাসাবাড়িতে ফিরছেন বন্যাদুর্গত লোকজন। অনেককে বাসা-বাড়ি ও দোকানপাট পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে দেখা গেছে।

গত ২৪ ঘণ্টা শুক্রবার (২৪ জুন) থেকে শনিবার (২৫ জুন) জেলার ৬১৪টি আশ্রয়কেন্দ্র থেকে ১ লাখ ৯৩ হাজার ১৭৯ জন মানুষ বাসা-বাড়িতে ফিরে গেছেন। একই সময়ে পুরোপুরি ফাঁকা হয়ে যাওয়ায় ৮টি আশ্রয়কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

সিলেট জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২৪ জুন পর্যন্ত সিলেট সিটি করপোরেশনের আংশিক, জেলার ১৩টি উপজেলা ৯৯টি ও ৫টি পৌরসভার মোট ৩ লাখ ৮৯ হাজার ৩২০ পরিবারের ২০ লাখ ২৫ হাজার ২৪৫ জন মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ২২ হাজার ১৫০টি ঘরবাড়ি ভেঙে গেছে এবং আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া জেলার ২৮ হাজার ৯৪৫ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে।

একই সময়ে সিলেট জেলার ১৩টি উপজেলা ও ৫টি পৌরসভা এবং সিলেট সিটি করপোরেশনে ৬১৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে ২ লাখ ৫২ হাজার ৮৭৮ জন বন্যার্ত মানুষ ও ২৮ হাজারের ওপর গৃহপালিত পশু আশ্রয় নেয়।

শনিবার বিকেলে জেলা প্রশাসনের মিডিয়া অফিসার সহকারী কমিশনার আহসানুল আলম জাগো নিউজকে জানান, পানি নামতে শুরু করায় গত ২৪ ঘণ্টায় আশ্রয় কেন্দ্র ছেড়েছেন ১ লাখ ৯৩ হাজার ১৭৯ জন মানুষ। এসময় আটটি আশ্রয় কেন্দ্র বন্ধ হয়েছে। বর্তমানে সিলেট সিটি করপোরেশনের আংশিক, জেলার ১৩টি উপজেলা ৯৯টি ও ৫টি পৌরসভায় মোট ৬০৬টি আশ্রয়কেন্দ্রে ৫৯ হাজার ৬৯৯ জন মানুষ রয়েছেন।