সিনোফার্মের টিকায় অগ্রাধিকার চান চীনে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা

সিনোফার্মের টিকায় অগ্রাধিকার চান চীনে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : চীনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা চীন থেকে আসা সিনোফার্মের টিকার অগ্রাধিকার চেয়েছেন। তাদের দাবি, চীনে উৎপাদিত ভ্যাকসিন না নিলে সে দেশে তাদের প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

সোমবার (২১ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনে এসব দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে চীনে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা দাবি করেন, সরকার একসময় বাংলাদেশে আটকে পড়া শিক্ষার্থীদের চীনে উৎপাদিত ভ্যাকসিন দেয়ার কথা বললেও এখন তাদের অগ্রাধিকার তালিকায় রাখা হয়নি। ফলে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে আটকে থাকার পরও তাদের চীনের যাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

এ সময় জরুরিভিত্তিতে চীনে অধ্যয়্নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় নিয়ে আনার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন তারা।

চীনে অধ্যয়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা বলছেন, তাদেরকে অগ্রাধিকার তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। কেন বাদ দেয়া হয়েছে তা জানতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদফতরে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তারা কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

মানববন্ধনে বাংলাদেশি ‘স্টুডেন্টস ইন চায়না’র সমন্বয়ক ফজলে রাব্বী বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে প্রায় ৫ হাজার শিক্ষার্থী চীন থেকে দেশে ফিরে আসে। কিন্তু দেড় বছর কেটে গেলেও আজ পর্যন্ত আমাদের ফিরে যাওয়া হয়নি এবং আমাদের ফিরে যাওয়ার জন্য কোনো পদক্ষেপও নেয়া হয়নি।’

মানববন্ধনে চীনে ফিরতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে তিন দফা দাবি জানানো হয়। সেগুলো হলো-

১. পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তাদের অগ্রাধিকারে রেখে দ্রুত ভ্যাকসিনের আওতায় নিয়ে আসা।
২. দীর্ঘ সাত মাস ধরে বন্ধ থাকা চীনে গমনেচ্ছু বাংলাদেশি নাগরিকদের সব ধরনের ভিসা পুনরায় চালু করা।
৩. বাংলাদেশের চীনা দূতাবাস ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের পরবর্তী সেমিস্টারের মধ্যেই চীনে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করা।