শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে গিয়ে যুবকের আত্মহত্যা

হাবিবুর রহমান, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বোয়ালমারি গ্রামের নাজমুল হোসেন(৩৫) দামুড়হুদার কাদিপুর গ্রামে শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে গিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

সোমবার গভীর রাতে ঘরের আড়ার সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে সে আত্মহত্যা করে। নাজমুল ইসলাম বোয়ালমারি গ্রামের আনিসুল হকের ছেলে। সে ঢাকায় এক কোম্পানির সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করতো।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

জানা গেছে, বছর দশেক আগে নাজমুলের বিয়ে হয় দামুড়হুদার কাদিপুর গ্রামের মনিরুল ইসলামের মেয়ে নাজমা খাতুনের সাথে। তাদের নাজমিন(৮) ও হ্যাপি(৫) নামের দুই কন্যা সন্তান রয়েছে। চাকুরির সুবাদে সে ঢাকায় থাকতো। ঈদের ছুটিতে বাড়ীতে আসে। ছুটি শেষ হওয়ায় আগে স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে সোমবার দুপুরে শ্বশুর বাড়ীতে বেড়াতে আসে। পরে রাতে খাওয়া দাওয়া করে ঘুমাতে যায়। সকালে উঠে শ্বশুর বাড়ির লোকজন দেখে ঘরের পাশে আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে নাজমুল ঝুলে রয়েছে।

নাজমুলের স্ত্রী সোনিয়া জানায়, আমার স্বামী ঢাকায় কোম্পানিতে সিকিউরিটি গার্ডের চাকুরি করতো। ঢাকায় চলে যাবে তাই আমরা সোমবারে এক সাথে আমার বাবার বাড়ি বেড়াতে আসি। রাতে খাওয়া দাওয়া শেষে ঘুমাতে যাই ও রাত ২টা পর্যন্ত আমরা গল্প করি তারপর আমরা ঘুমিয়ে পড়ি।

সকালে উঠে বাথরুমে যাওয়ার পথে দেখি আমার স্বামী আমাদের ঘরের আড়ার সাথে ঝুলে আছে। খবর পেয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।