লাখো মানুষের চলাচলে চরম দুর্ভোগ গাবতলী-চৌকিরঘাট সড়কে অসংখ্যস্থানে গর্তের সৃষ্টি

মুহাম্মাদ আবু মুসা : বগুড়ার গাবতলী-কাগইল চৌকিরঘাট সড়কে পাকা কার্পেটিং উঠে গিয়ে অসংখ্য স্থানে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে সড়কটির উপর দিয়ে সব ধরনের যানবাহন চলাচলে প্রায় অযোগ্য হয়ে পড়েছে। যে কারনে জনসাধারণের পোয়াতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ। এই সড়কটি দ্রুত পুনঃ নির্মাণ বা মেরামত করা না হলে উত্তর গাবতলীর মানুষ অনেকটা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসি। জানা গেছে, গাবতলী-চৌকিরঘাট সড়কটির সাথে বগুড়া জেলা শহর ছাড়া মহাসড়কের অত্যান্ত সর্ম্পক রয়েছে। গাবতলী উপজেলার মধ্যে এই সড়কের পীরগাছা বন্দর ব্যবসায়ী কেন্দ্রস্থল হিসেবে গড়ে উঠেছে। তাছাড়া এই সড়কের সাথে আরো বেশ কয়েকটি বন্দর ও হাট বাজারের সর্ম্পক রয়েছে। এ গুলো থেকে প্রতি বছর সরকার কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করে থাকে। গাবতলী-চৌকিরঘাট সড়কে রয়েছে হাট-বাজার, বন্দরে মাছের আড়ৎ থেকে শুরু করে বহু চাতালসহ সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কয়েকটি ব্যাংক, বীমা, এনজিওসহ সরকারী বেসরকারী অনেক অফিসও রয়েছে। এই সড়কটির উপর দিয়ে প্রতিদিনই লাখো মানুষ শতশত যানবাহন নিয়ে চলাচল করে। নানা ধরনের যানবাহন ও পায়ে হেঁটে যাতায়াত করে থাকে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী, অফিসগামীসহ লাখো মানুষ। প্রায় ২৫কিলো মিটার গাবতলী-চৌকিরঘাট সড়ক রয়েছে সড়ক ও জনপথ (সওজ) এর আওতায়। এই সড়কে তেমন কোন কাজ না হওয়ায় ২/৩ কিলোমিটার ছাড়া সম্পূর্ণ সড়কটির বেহাল অবস্থা রয়েছে। সড়কটির পাকা কার্পেটিং উঠে গিয়ে অসংখ্যস্থানে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় দেখে মনে হবে এটি কোন সড়ক নয়। এ কারনে প্রতিদিন ছোট বড় দুর্ঘটনা লেগেই আছে। কিছু দিন আগে ওই সড়কের ছেও এলাকায় রাহেল নামের এক স্কুল শিক্ষকের প্রাণ দিতে হয়েছে। আবার সড়কে সৃষ্টি হওয়া গর্তে ময়লা পানি জমে থাকায় যানবাহনের চাকায় পানি ছিটকে মানুষের শরীরে লেগে কাপড় চোপড় নষ্ট হওয়ায় ঝগড়া বিবাদও সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়া আরো নানা সমস্যা হওয়ার কারনে জনসাধারণের পোয়াতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ। তাই দ্রুত সড়কটি নির্মাণের ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসি ও ব্যবসায়ী মহল। এ বিষয়ে ওই সড়কের লস্কড়ীপাড়া গ্রামের সার ডিলার ও সমাজসেবক আলহাজ¦ ইমরান হোসেন রিবন এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, ব্যস্থতম সড়কটির পাকা কার্পেটিং উঠে গিয়ে অসংখ্যস্থানে গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় মানুষ অতি কষ্টে চলাচল করছে। তিনি (রিবন) দ্রুত কাজটি করার জন্য সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেন টুকু, আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, শিক্ষক হাসানুজ্জামান রতন, ব্যবসায়ী আবু আছাদ, সাংবাদিক আল আমিন মন্ডল, আতাউর রহমান, কৃষক শাহাদৎ হোসেন, আব্দুস সোবাহান জানান, সড়কটির বেহাল অবস্থা হওয়ায় ছাত্র-ছাত্রী, ব্যবসায়ীসহ সর্বশ্রেনীর মানুষ অতি কষ্ট করে যাতায়াত বা চলাচল করছে। ফলে সড়কটির দ্রুত পুনঃনির্মাণ বা মেরামত করার জন্য সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন জানান। কাগইল ইউপি চেয়ারম্যান আগা নিহাল বিন জলিল তপন জানান, এই সড়কটি দ্রুত পুনঃ নির্মাণ বা মেরামত করা না হলে উত্তর গাবতলীর লাখো মানুষ অনেকটা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি (তপন)। এ ব্যাপারে বগুড়া সড়ক ও জনপথ (সওজ) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আসাদুজ্জামান এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, সড়কটির অবস্থা খারাপ হওয়ার বিষয় আমাদের জানা থাকায় জেলা সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে। তিনি (আসাদুজ্জামান) আরো বলেন, দক্ষিন গাবতলীর ধুনট এর সিমানা থেকে উত্তর গাবতলীর শেষ সিমানা চৌকিরঘাট পর্যন্ত ৫২কিলোমিটার পাকা সড়ক পুনঃনিমার্ণের জন্য বরাদ্দ চেয়ে সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করা হয়েছে। আশা করছি অচিরেই এই সড়ক পুনঃনিমার্ণের জন্য বরাদ্দ পাওয়া যাবে। এ ছাড়া এই পুনঃনিমার্ণ কাজ গুলো চলমান রয়েছে। বগুড়া সড়ক ও জনপথ (সওজ) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আসাদুজ্জামান আরো বলেন, আপাতত ওই সড়কে যে গুলো স্থানে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে সেই স্থানে মেরামত করা হচ্ছে।