রেলওয়ের শ্রমিক—কর্মচারীদের মানসিক ও অর্থনৈতিক নির্যাতন বন্ধের আহ্বান

বাংলাদেশ রেলওয়েতে কর্মরত প্রায় ২৬ হাজার শ্রমিক—কর্মচারীদের মানসিক ও অর্থনৈতিক নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির কেন্দ্রীয় সভাপতি মোঃ মনিরুজ্জামান মনির। আজ ৫ এপ্রিল ২০২২ (মঙ্গলবার) বিকালে সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এ দাবি জানান।

মনিরুজ্জামান মনির বলেন, দীর্ঘদিন ধরে লক্ষ্য করা যাচ্ছে রেলওয়ের শ্রমিক—কর্মচারীরা দায়িত্বপালনকালে সামান্যতম ত্রুটি হলেই তাদের বেআইনীভাবে জরিমানা, কন্ট্রোল অর্ডারে সাসপেন্ড, ২—৫ বছরের ইনক্রিমেন্ট বন্ধের নির্দেশ, যখন তখন বদলিসহ বিভিন্নভাবে সাধারণ শ্রমিক—কর্মচারীদের কিছু কিছু কর্মকর্তা নির্যাতন করে আসছে। এসব ঘটনার কারণে শ্রমিক—কর্মচারীরা মানসিকভাবে অসুস্থ্য হয়ে পড়ছেন। কর্মক্ষেত্রে তারা মনোযোগী হতে পারছেন না।

তিনি আরো বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে রেলওয়ের শ্রমিক—কর্মচারীদের বেতন অব্যবস্থাপনা কারণে তারা অর্থনৈতিকভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। যথাসময়ে বেতন না পেয়ে তারা পরিবারের সদস্যদের ভরণপোষণ, চিকিৎসা, পড়াশোনার খরচ মেটাতে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। অনেক ঋণগ্রস্তও হয়ে পড়ছেন। একই অবস্থা পেনশনভোগী সাবেক শ্রমিক—কর্মচারীদেরও।

মনিরুজ্জামান মনির আরো বলেন, রেলওয়ের শ্রমিক—কর্মচারীরা কিছু কর্মকর্তা কতৃর্ক মানসিক ও অর্থনৈতিক নির্যাতনের শিকার হলেও রেলপথ মন্ত্রণালয় রয়েছে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০৫ বাস্তবায়নে প্রশিক্ষণ বিষয়ক আলোচনা সভা নিয়ে। রেলওয়ের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ থাকার পরও দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০৫ বাস্তবায়নে প্রশিক্ষণ এবং অভিযান পরিচালনার কাজে পাঠানো হচ্ছে। এতে করে তারা যথাসময়ে তাদের দাপ্তরিক কাজ সম্পন্ন করতে পারছেন না। আমরা শ্রমিক—কর্মচারীরা যাতে মানসিক ও অর্থনৈতিক নির্যাতনের শিকার না হয় সেজন্য কর্মকর্তাদের যথোপযুক্ত প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য রেলপথ মন্ত্রণালয়ের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি।প্রেস বিজ্ঞপ্তি