মুক্তিযোদ্ধা ভবনের বাথরুমে মুক্তিযোদ্ধার আত্মহত্যা!

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা মো. জলফে আলী (৮০) বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। রোববার (১৭ মার্চ) বিকেলে সুনামগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের বাথরুম থেকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মুক্তিযোদ্ধা জলফে আলীর বাড়ি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের নতুন গোদীগাঁও গ্রামে। তাঁর স্ত্রী, দুই ছেলে ও তিন মেয়ে আছে। পরিবারের অন্যদের সঙ্গে তিনি ওই গ্রামেই থাকতেন।

গতকাল রোববার বঙ্গবন্ধুর ৯৯ তম জন্মবার্ষিকীর কর্মসূচিতে যোগ দিতে শহরে এসেছিলেন তিনি।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার নুরুল মোমেন জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রোববার দুপুরে তাঁদের শোভাযাত্রা কর্মসূচি ছিল। বেলা ১২ টায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন থেকে মুক্তিযোদ্ধারা শোভাযাত্রা বের করেন। এর আগে মুক্তিযোদ্ধারা ওই কমপ্লেক্সে এসে জড়ো হন। তখন মুক্তিযোদ্ধা জলফে আলীও ওই ভবনে ছিলেন। তবে তিনি শোভাযাত্রায় গিয়েছিলেন কি-না সেটি কেউ বলতে পারছেন না।

বিকেল চারটার দিকে ভবনের তৃতীয়তলার একটি বাথরুমে একজন মুক্তিযোদ্ধা যেতে চাইলে তিনি সেটির দরজা বন্ধ পান। বেশ কিছু সময় ধরে অপেক্ষা করেও দরজা না খোলায় তিনি বিষয়টি মুক্তিযোদ্ধা নুরুল মোমেনকে জানান। তিনি তখন অন্যদের নিয়ে ওই বাথরুমের সামনে গিয়ে দরজায় ধাক্কাধাক্কি করে কোনো সাড়া না পেয়ে পিয়নকে দরজা ছিদ্র করতে বলেন।

দরজা ছিদ্র করে ভিতরে এক ব্যক্তিকে পড়ে থাকতে দেখতে পান তাঁরা। পরে দরজা ভেঙে দেখেন ভিতরে মুক্তিযোদ্ধা জলফে আলীর লাশ উপুর হয়ে পড়ে আছে। তাঁর পাশেই একটি কীটনাশকের বোতল পাওয়া যায় তখন। পরে বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালে পাঠায়।

খবর পেয়ে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল আহাদ, পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শরিফুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘বিষয়টি খবুই দুঃখজনক। প্রায় ৮০ বছর বয়সী একজন মুক্তিযোদ্ধা কী কারণে আত্মহত্যা করলেন সেটিই আমরা বুঝে উঠতে পারছি না। তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক অফিসার ডা. রফিকুল ইসলাম বলেন, মুক্তিযোদ্ধা জলফে আলীর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে বিষ পানে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। তবে ভিসেরা রিপোর্ট হাতে আসলে আরো পরিষ্কার বলা হবে।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সভাপতি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, আত্মহত্যার ঘটনা শুনে সাথে সাথে আমি ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। আত্মহত্যার ব্যাপারে কোনো কারণ জানা যায়নি। তাঁর পরিবারও কোনো অভিযোগ করেননি।