মাশরাফির নজর প্রথম ম্যাচে

মাশরাফির নজর প্রথম ম্যাচে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টেস্ট জয়ের মধুর স্মৃতি নিয়ে এবার ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে মোকাবেলা করবে বাংলাদেশ। আগামীকাল (রবিবার) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম ম্যাচ। আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে থাকা বাংলাদেশ ফেভারিট হলেও সিরিজটাকে সহজভাবে নিচ্ছেন না দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তাই গোটা সিরিজ নিয়ে না ভেবে আপাতত প্রথম ম্যাচেই নজর রাখছেন অধিনায়ক।

শনিবার ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেন, ‘আপাতত এখন একটা ম্যাচ ছাড়া ভাবার সুযোগ নেই। প্রথম ম্যাচ খেলতে নামার আগে তিনটা ম্যাচ নিয়ে ভাবলে অনেক চাপ আসে। প্রস্তুতি ম্যাচের উইকেট যেমন ছিল, এখানের উইকেট নিশ্চিত ওরকম থাকার কথা নয়। কারণ, এখানে তিনশ রানের ইনিংস চেজ খুব কমই হয়। আসল কাজ শুরু কাল (রবিবার) থেকে। প্রথম ম্যাচটা আসলে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তার পরেরটা পরে ভাবা যাবে।’

ওয়ানডে সিরিজের আগে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে উন্ডিজদের হোয়াইটওয়াশ করেছে বাংলাদেশ। ৫০ ওভারের সিরিজেও কি একই টার্গেট থাকবে নাকি জানতে চাইলে অধিনায়ক বলেন, ‘এখনই হোয়াইটওয়াশ নিয়ে ভাবার সুযোগ নেই। দেখা যাক, প্রথম ম্যাচটা কেমন হয়। তারপর না হয় ভাবা যাবে।’

ক্রিকেটে চলতি বছরটা দারুণ কাটিয়েছে বাংলাদেশ। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে চলমান সিরিজটি এ বছরের শেষ সিরিজ। শেষটাও জয় দিয়েই রাঙাতে চান মাশরাফি, ‘এই বছর আমাদের অনেক ভালো কেটেছে, শুধু দুটি ফাইনাল বাদে। এছাড়া আমার কাছে মনে হয়, এই বছর রেটিং খুব ভালো আছে। সামনের বছর শুরু থেকে অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। শেষটা ভালো করলে এই বছরটা খুব ভালো যাবে। ’

দীর্ঘ আড়াই মাসের চোট কাটিয়ে মাঠে ফিরেছেন তামিম ইকবাল। বাংলাদেশের ওপেনিংয়ে অটোমেটিক চয়েস তিনি। কিন্তু তার সঙ্গী বাছাইয়ে মধুর সমস্যায় পড়েছেন নির্বাচকরা। কারণ, ওপেনিংয়ে জায়গা পেতে প্রতিযোগিতায় আছেন সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়স এবং লিটন কুমার দাস। কিন্তু টিম কম্বিনেশনের জন্য একজনকে তো বাদ পড়তেই হবে। সেক্ষেত্রে প্রথম ম্যাচে লিটনকে দলে না দেখলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। টপ অর্ডার নির্বাচন প্রসঙ্গে অধিনায়ক মাশরাফি বলেন, ‘মধুর সমস্যা হলো টপ অর্ডারে সবাই ফর্মে আছে। যেটা আমরা অনেক দিন থেকে চাচ্ছিলাম। তারপরও একটা সিদ্ধান্তে যেতেই হবে। ভাল হলে মনে হবে এটাই ঠিক আছে। খারাপ হলে মনে হবে যে রান করেও বাদ গেছে, হয়ত ওকেই খেলালে ভাল হত। কথাবার্তা অনেক চলবে। এখনও অনেকের চিন্তাভাবনা আছে। কোচ, নির্বাচকদের সঙ্গে আলাপ করে একটা সিদ্ধান্ত নিতেই হবে।’

দেশ সেরা ওপেনার তামিম ইকবালকে ছাড়া এশিয়া কাপসহ মোট তিনটি সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। তাছাড়া চোটের কারণে দীর্ঘদিন দলে ছিলেন না অলরাউন্ডার সাকিব আর হাসানও। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে টেস্ট দিয়ে ফিরেছেন সাকিব। এবার ওয়ানডে দিয়ে প্রত্যাবর্তন হচ্ছে তামিমের। দু’জনকে পেয়ে কতটা আত্মবিশ্বাসী হবে বাংলাদেশ জানতে চাইলে মাশরাফি বলেন, ‘সাকিব-তামিম দলে থাকা আমাদের জন্য বিরাট বিষয়। প্রস্তুতি ম্যাচেও তামিম দারুণ খেলেছে, এটা তামিমের জন্যও স্বস্তি, আমাদের জন্যও স্বস্তি। চোট থেকে ফিরলে কিন্তু বেশ কিছু দিন লাগে মানিয়ে নিতে। দু’মাস থেকে আড়াইমাস পর্যন্ত বাইরে ছিল সে। তাই এই সিরিজটা তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সাকিব হয়ত টেস্ট ম্যাচ খেলে কিছুটা মানিয়ে নিয়েছে। তামিমের কিছুটা সময় লাগতে পারে। কিন্তু ওদের উপস্থিতি প্রত্যেক খেলোয়াড়ের জন্য স্বস্তিদায়ক ব্যাপার।’

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ২০০তম ম্যাচে খেলার দাঁড়প্রান্তে মাশরাফি। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেটি তার ২০০তম ম্যাচ। তবে নিজের বিশেষ দিনে দলের জয়টাই বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে অধিনায়কের কাছে। বিশেষ দিনে ম্যাচটা স্রেফ জিততে চান মাশরাফি।