মন্দিরের সম্পত্তি উদ্ধার হওয়ায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

গাজীপুর থেকে আনন্দ রায় : গাজীপুরের ঐতিহাসিক শীতলাতলা মন্দিরের সম্পত্তি রক্ষার্থে মন্দির কমিটির সদস্যরা কয়েকদিন পূর্বে সহযোগীতা চাইলে মানবাধিকার কর্মী আশীষ কুমার অঞ্জন বিষয়টি জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার মানবাধিকার সচিব সাজ্জাদুল কবীর এর স্মরণাপন্ন হন। তার দিক নির্দেশনায় পুলিশ কমিশনার বরাবরে আবেদন জমা এবং পরবর্তীতে গাছা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যান। এসময় সরাসরি অনলাইনে পর্যবেক্ষন ও পরামর্শ প্রদান করেন সাজ্জাদুল কবীর এবং সরাসরি মাঠে থানা পুলিশের সাথে মন্দির কমিটির কাগজপত্র নিয়ে উপস্থিত ছিলেন মানবাধিকার কর্মী আশীষ কুমার অঞ্জন। দিনভর আলোচনা পর্যালোচনার পর অপরাহ্নে সিদ্ধান্ত আসে সম্পত্তিটি মন্দিরের। অত:পর পুলিশের সহায়তায় জায়গাটি উদ্ধার হয়। উপযুক্ত কাগজপত্র বা প্রমানাদি দেখাতে না পারায় এসময় অবৈধ দখলদারদের স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলা হয়।

অতি সংক্ষিপ্ত সময়ে মন্দিরের সম্পত্তি উদ্ধার হওয়ার ঘটনায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দ। অপরদিকে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি বিশেষ করে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক, গাজীপুরের পুলিশ কমিশনাৱ, গাছা থানার অফিসার ইনচার্জসহ পুলিশ সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার মানবাধিকার সচিব বিশিষ্ট সাংবাদিক সাজ্জাদুল কবীর, মানবাধিকার কর্মী ও একুশের আলো ২৪ এর ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি আশীষ কুমার অঞ্জন এবং একুশের আলো ২৪ গাজীপুর এর বিশেষ প্রতিনিধি আনন্দ রায় ।
উল্লেখ্য, গাজীপুরের ঐতিহাসিক শীতলাতলা মন্দিরের সম্পত্তি ৩২ নং ওয়ার্ডের মৃত মাদবর আলীর পুত্র মো: সেলিম মিয়া দখল করেন বলে মন্দির কমিটি অভিযোগ দাখিল করেন।