ফকিরহাটে গৃহবধূর পরকিয়া প্রেমজ সম্পর্ক প্রত্যাখ্যান : থানায় অভিযোগ

ফকিরহাটে গৃহবধূর পরকিয়া প্রেমজ সম্পর্ক প্রত্যাখ্যান : থানায় অভিযোগ

ফকিরহাট সংবাদদাতা : ফকিরহাটের পল্লীতে ২ সন্তানের এক গৃহবধূ প্রেমের টানে স্বামী-সন্তান ও সংসার ফেলে এসেও প্রেমিকের নিকট ঠাই পেলনা। অবশেষে কোন উপায়ন্ত না পেয়ে গৃহবধু নিজ বাদী হয়ে প্রেমিক সহ ৩ জনের নাম উল্লেখ করে ফকিরহাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা জানায়, গত প্রায় ৫ বছর পূর্বে ফকিরহাট উপজেলার গুড়গুড়িয়া গ্রামের ভরত বিশ্বাসের সুন্দরী কন্যা মেরী রানী বিশ্বাস এর সাথে একই ইউনিয়নের গোয়ালবাড়ীচর এলাকায় সুজন মন্ডলের সহিত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বর্তমানে তাদের টাপুর-টুপুর নামে জমজ দু’টি সন্তান রয়েছে। এদিকে পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে মেরী বিশ্বাসের সাথে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে উঠে পার্শবর্তী নলধা-মৌভোগ ইউনিয়নের কাকডাঙ্গা গ্রামের দবির আলী সরদারের পুত্র সেকেন্দার আলীর সহিত। আস্তে আস্তে তাদের সম্পর্ক গভীর থেকে গভীরতম হয়ে পড়ে। একপর্যায়ে উভয়ে বিভিন্ন সময়ে মেলা-মেশায় লিপ্ত হয় বলে ভুক্তভোগী জানায়। মেরী বিশ্বাস সেকেন্দারের প্রেমে আসক্ত হয়ে স্বামী-সন্তান ত্যাগ করে নতুন ঘর বাধার স্বপ্নে বিভোর হয়ে সেকেন্দারের নিকট চলে আসে। এরপর মেরী কে প্রায় ৭/৮ মাস যাবৎ ঢাকাস্থ রেখে ভুয়া বিবাহের কাগজপত্র তৈরী করে প্রায় তারা অবৈধ্য দেহমিলনে আসক্ত হয়েছে বলে মেরী জানায়। এরপর প্রতারক সেকেন্দার সেখান থেকে মেরীকে ফেলে রেখে পালিয়ে আসে। অবশেষে মেরী তার নিজ এলাকায় ফিরে এসে সেকেন্দারের সাথে দেখা করার চেষ্টা করে। কিন্তু সু-চতুর ও প্রতারক সেকেন্দার সু-কৌশলে এড়িয়ে চলে মেরীকে। সম্প্রতি মেরী কাটাখালী এলাকায় সেকেন্দারের কর্মস্থলে দেখা করতে গেলে তাকে সেকেন্দারের আপন ভাই চলন্ত নছিমন থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এতে সে মারাত্বক আহত হয়ে ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে ভর্তি হয়। সর্বশেষ গত ৩০ মার্চ অসহায় গৃহবধু কাকডাঙ্গা এলাকার স্থানীয় ইউপি সদস্য’র নিকট এসে বিস্তারিত জানায়। মুহুর্তের মধ্যে ঘটনাটি ব্যপক ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয়রা ইউপি সদস্য সহ মেরীকে নিয়ে ফকিরহাট থানার শ্মরনাপন্ন হয়। এদিন এ ঘটনায় মেরী নিজে বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিলো। এ ব্যাপারে অফিসার্স ইনচার্জ (সার্বিক) মো: আনোয়ার হোসেন এ প্রতিনিধিকে জানান, মেয়েটির কাছ থেকে বিস্তারিত জেনেছি। সে অভিযোগ দায়ের করছে। তদন্ত সাপেক্ষে বিষয়টি দেখা হবে।