পিকে হালদারের ঘনিষ্ট বান্ধবী রুনাইকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

নিউজ ডেস্ক : বহুল আলোচিত ও হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করে কানাডায় পালিয়ে যাওয়া প্রশান্ত কুমার হালদারের (পিকে হালদার) ঘনিষ্ট বান্ধবীসহ দুজনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদক।

তারা হলেন‑ পিকে হালাদারের বান্ধবী ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক ভিপি নাহিদা রুনাই ও ওকায়ামা লিমিটেডের পরিচালক শুভ্রা রাণী ঘোষ।

রোববার পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার খান।

চলতি বছরের ১৬ মার্চ সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে নাহিদা রুনাই ও ২২ মার্চ বিমানবন্দর এলাকা থেকে শুভ্রা রানী ঘোষকে গ্রেফতার করে দুদক।

দুদক সূত্র জানায়, পিকে হালাদারের বান্ধবী ও অন্যতম সহযোগী নাহিদা রুনাইসহ অন্যান্য আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ক্ষমতার অপব্যবহার করে আনান কেমিক্যাল লিমিটেড নামে একটি নাম সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানকে ৭০ কোটি টাকার ঋণ দেয়। ঋণ উত্তোলনের পর আনান কেমিক্যালের সেই টাকা আবারও পিকে হালদার ও তার সহযোগীসহ সবাই মিলে আত্মসাৎ করেছে।

প্রসঙ্গত, আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুসহ সিন্ডিকেটের সহায়তায় কয়েকটি লিজিং কোম্পানি থেকে অন্তত ১০ হাজার ২০০ কোটি টাকা সরিয়ে পিকে হালদার দেশ থেকে সটকে পড়েন। এ অর্থের বড় একটি অংশ কানাডা, ভারত ও সিঙ্গাপুর পাচার করেন।

For all latest news; follow EkusherAlo24's Google News Channel

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে প্রায় ২৫০০ কোটি টাকা সরানো হয়। এছাড়া এফএএস ফাইন্যান্স, রিলায়েন্স ফাইন্যান্স এবং পিপলস লিজিং থেকে একই কায়দায় আরও প্রায় ৭৫০০ কোটি টাকা ঋণের নামে উত্তোলন করে আত্মসাৎ করে পিকে হালদার ও তার সিন্ডিকেট।

সব মিলিয়ে ১০ হাজার কোটি টাকার মধ্যে এফএএস ফাইন্যান্স থেকে প্রায় ২২০০ কোটি টাকা, রিলায়েন্স ফাইন্যান্স থেকে ২৫০০ কোটি টাকা, পিপলস লিজিং থেকে প্রায় ৩০০০ কোটি টাকা অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ দেখিয়ে আত্মসাৎ ও পাচার করা হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, পি কে হালদারের ঘনিষ্ট বান্ধবী হিসেবে পরিচিত নাহিদা রুনাইয়ে বাড়ি চট্টগ্রামের খুলশী থানার পূর্ব নাসিরাবাদ এলাকায়। রুনাইয়ের বাবার নাম মফিজুর রহমান। তিনি চট্টগ্রামে একটি সরকারি দপ্তরে ‘করণিক’ পদে চাকরি করতেন।

নাহিদা রুনাই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লেখাপড়া শেষে জীবিকার সন্ধানে ঢাকায় এসে রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডে চাকরি পান।

চাকরির সুবাদে ঘনিষ্ট সম্পর্ক হয় পিকে হালদারের সঙ্গে। ২০০৯ সাল থেকে রিলায়েন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন পিকে হালদার। ২০১২ সালের দিকে পিকের সঙ্গে পরিচয় রুনাইয়ের। পিকে হালদারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা এত বেশি হয়ে যায় যে, তাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এসএমই লোন শাখার অফিস এক্সিকিউটিভ থেকে প্রতিষ্ঠান প্রধান পিকে হালদারের বান্ধবী ‘বড় আপা’ হিসেবে পরিচিতি পান তিনি।