নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বিক্ষোভে উত্তাল ইবি

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বিক্ষোভে উত্তাল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। পৃথক দাবিতে প্রশাসন ভবন এবং প্রধান ফটক অবরোধ করে স্লোগান দিচ্ছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন দমাতে সকাল থেকে মিছিল, সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে ক্যাম্পাসে মাইকিং করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ক্যাম্পাসে র্যাব, পুলিশকে টহল দিতে দেখা গেছে।

এছাড়া আন্দোলন দমাতে কুষ্টিয়া এবং ঝিনাইদহের শিক্ষার্থীদের বাস সার্ভিস বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। এতে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ হয়ে যায়। আজকের ১৪টি চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত হয়ে যায় বলে নিশ্চিত করেছেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দফতরের এক কর্মকর্তা।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রির দাবিতে আন্দোলন করতে গিয়ে পাঁচ বিভাগের ২২ শিক্ষার্থী বুধবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে আটক হন।

সহপাঠীদের মুক্তিসহ ডিগ্রি প্রদানের দাবিতে সকাল সাড়ে ৯টা থেকেই প্রশাসন ভবনের প্রধান ফটক অবরোধ করে রাখেন শিক্ষার্থীরা। দুপুর দেড়টার দিকে আটককৃতদের ছেড়ে দেয়ার আশ্বাস এবং তাদের ডিগ্রির বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দেয় প্রশাসন। তবে আটককৃতরা ক্যাম্পাসে না পৌঁছা পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন।

এদিকে, বেতন-ফি কমানোর দাবিতে মঙ্গলবার সাধারণ শিক্ষার্থীরা বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রশাসনকে সময় বেঁধে দেন। বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের বেতন-ফি কমানোর জন্য সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেনি প্রশাসন।

ফলে প্রথমে প্রশাসন ভবনের পেছনের ফটক অবরোধ করলেও বেলা পৌনে ২টার দিকে প্রধান ফটক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। ফলে ক্যাম্পাস থেকে বেলা ২টার বাস কুষ্টিয়া এবং ঝিনাইদহে ছেড়ে যেতে পারেনি। এতে ভোগান্তিতে পড়েন শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

বেতন-ফি কমানোর দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দিলেও কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ নেয়নি প্রশাসন। উল্টো আমাদের আন্দোলন প্রতিহত করতে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে।