‘নির্বাচনকালীন সরকারের সুরাহা না হলে রাজপথে নামবে মানুষ’

‘নির্বাচনকালীন সরকারের সুরাহা না হলে রাজপথে নামবে মানুষ’

21.nirbachonএকুশেরআলো২৪ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়াল বলেছেন, বাংলাদেশে প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাংঘর্ষিক অবস্থানে রয়েছে। দুই দলের এ অবস্থানের কারণে দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর ফলে রাজপথে বিক্ষোভ ও হরতাল কর্মসূচি সহিংসতায় রূপ নিচ্ছে।  তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে ঐক্যমতে না পৌঁছতে পারলে, তার সমাধানে দেশের সাধারণ মানুষ রাস্তায় নেমে আসবে।

বিশ্বের প্রভাবশালী সংবাদসংস্থা রয়টার্সে ‘ফাইটিং ফর ডেমোক্রেসি ইন সাউথ এশিয়া’ শিরোনামে লেখা এক নিবন্ধে তিনি এসব কথা বলেন।
বিসওয়াল বলেন, আগামী ছয় মাসে দক্ষিণ এশিয়ার এক বিলিয়ন লোক ভোটের মাধ্যমে তাদের নতুন নেতা নির্বাচন করবে। বিশেষ করে বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার পরিস্থিতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ঔপনিবেশক শাসনের পর এই প্রথম দক্ষিণ এশিয়ার সবগুলো দেশ গণতন্ত্রের পথে এগিয়ে যাচ্ছে।
দক্ষিণ এশিয়ার গণতন্ত্র নিয়ে নিবন্ধে বিসওয়াল বলেন, ভুটান থেকে বাংলাদেশ, কাবুল থেকে কাঠমান্ডু গণতন্ত্রের উত্তরণ ঘটছে। সেখানাকার জনগণ তাদের কন্ঠকে গণতন্ত্রের জন্য সোচ্চার করছে। কিন্তু এই ঐতিহাসিক অর্জন বিফলেও চলে যেতে পারে যদিনা রাজনৈতিক পালা-বদল গণতন্ত্রের পথে না হয়।
নেপালের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ভঙ্গুর ও ঝুঁকিপূর্ণ বলে উল্লেখ করে দক্ষিণ এশিয়ার গণতন্ত্রের উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এক হয়ে কাজ করার আহবান জানান তিনি।
তিনি বলেন, একমাত্র সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ নিবাচন ব্যবস্থাই হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার নাগরিকদের মুক্তির পথ।  আর এটিই শান্তিপূর্ণ উপায়ে তাদের পছন্দের ব্যাক্তি বাছাই ও দাবি আদায়ের সহায়ক। এটি কেবল যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যায়ন নয়, বিশ্বের অভিব্যাক্তি। সব জায়গায় যাতে শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জন হয় তার জন্য কাজ করে যাবে যুক্তরাষ্ট্র।