‘আবার ক্ষমতায় আসলে দেশে দরিদ্র মানুষ থাকবে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগ আবারও ক্ষমতায় আসতে পারলে দেশে কোনো দরিদ্র মানুষ থাকবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে এক নির্বাচনী জনসভায় এ প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ কামরাঙ্গীরচরের কুড়ার ঘাটে ৩১ শয্যার সরকারি হাসপাতাল মাঠে জনসভাটির আয়োজন করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে দেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নতি হয়। মানুষ কিছু পায়। আর বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তারা জাতিকে কিছু দিতে পারে না। তারা জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলে।

দেশ ও জাতিকে কিছু দিতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে মন্তব্য করেন তিনি বলেন, আগামীতে আওয়ামী লীগ যদি নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় আসতে পারে তবে দেশে কোনো দরিদ্র মানুষ থাকবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, আগামী নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিগত দিনে বিএনপি-জামায়াত জোট জনগণকে কিছু দিতে পারেনি। তারা শুধু নিতে পারে। আর আওয়ামী লীগ শুধু দিতে জানে। যে পরিকল্পনা সামনে নেওয়া হয়েছে সে ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য আওয়ামী লীগের ফের ক্ষমতায় আসা দরকার।

তিনি বলেন, বিএনপি একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে মানুষ হত্যা করেছে। ২০০১ এর জাতীয় নির্বাচনের পর ঢাকায় মেয়র নির্বাচনে হানিফ সাহেব কেন নির্বাচিত হল এজন্য পুরান ঢাকায় ৬ জনকে গুলি করে হত্যা করেছিল তারা। ওই বিএনপি-জামায়াত জোট দেশ ও জাতিকে কিছু দিতে পারে না। আওয়ামী লীগ আসে জাতিকে কিছু দিতে। কারণ আওয়ামী লীগ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ৭৫ পরবর্তী সময়ে যারা ক্ষমতা দখল করেছিল তারা শুধু নিজের ভাগ্য গড়েছে, মানুষের জমি দখল, অর্থ-সম্পত্তি লুট আর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের হত্যা করেছে। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়ত জোট ক্ষমতায় এসে আবারও মানুষের ওপর অত্যাচার নির্যাতন নিপীড়ন করতে শুরু করে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে বাংলাদেশের মানুষ নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে সংসদে দুই-তৃতীয়াংশ মেজরিটি দেয়। ২০১৪’র নির্বাচন ঠেকানোর নামে বিএনপি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা শুরু করে। সাধারণ মানুষ তাদের প্রতিরোধ করে, নির্বাচন হয়। আমরা জয়লাভ করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ক্ষমতায় আসতে পেরেছিলাম বলেই দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পেরেছি। মানুষের জীবনমান উন্নয়ন করতে পেরেছি, সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি করতে পেরেছি। দেশের মানুষের ভাগ্য আমরা গড়ে তুলেছি।

তিনি বলেন, আমার রাজনীতিতে হারাবার কিছু নেই। আমার পিতা স্বাধীনতার জন্য জেল-জুলুম সহ্য করেছেন, দেশের মানুষের ভাগ্য গড়তে গিয়ে নিজের জীবন পর্যন্ত দিয়ে গেছেন। জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার জন্যই আমার রাজনীতি।

এসময় তিনি নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে বলেন, আপনাদের প্রতি অনুরোধ থাকলো ঢাকার দক্ষিণে যাদের আমি প্রার্থী করেছি তাদের আপনার ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন।