৭০০ কোটি টাকার ঋণ অনিয়মের ঘটনায় জড়িত বিআইএফসি

তথ্য গোপন করে নামে-বেনামে বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি থেকে ৭০০ কোটি টাকার ঋণ অনিয়মের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জড়িত রয়েছেন বিআইএফসির চেয়ারম্যান কুলসুম মান্নান, মেয়ে তানজীলা মান্নানসহ আরো ছয় পরিচালক।

অনিয়মের কারণে বিআইএফসির বর্তমান পর্ষদকে আগামী মেয়াদে দায়িত্ব পালনের অনুমতি দেয়নি কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের এক পরিদর্শনে এই অনিয়মের ঘটনা ধরা পড়ার পর এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে সূত্র জানায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীদের নিয়ে রোববার অনুষ্ঠিত বৈঠকে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ না করে বলেন, ‘একটি প্রতিষ্ঠানের সাবেক চেয়ারম্যান নিজ নামে এবং স্ত্রী, কন্যা, তার স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মনোনীত ব্যক্তি ও প্রতিনিধিদের মাধ্যমে ৭০০ কোটি টাকা তুলে নিয়েছেন।’

গভর্নর বলেন, ‘বিভিন্ন অনিয়ম প্রমাণ হওয়ায় সুশাসন নিশ্চিত করতে দুটি প্রতিষ্ঠানের পর্ষদে দুজন পর্যবেক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী, কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালকের নিজের নামে বা স্বার্থসংশ্লিষ্ট কোনো প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ঋণ নিতে হলে আগে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু কোনো ধরনের অনুমোদন ছাড়াই তথ্য গোপন করে বিআইএফসি থেকে বিপুল পরিমাণের ঋণ নেয়া হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, খেলাপি হওয়ার পরও কিছু ঋণ হিসাবকে খেলাপি না দেখানো এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অনেক ঋণ হিসাবকে সিআইবিতে রিপোর্ট না করার ঘটনাও পরিদর্শনে উঠে এসেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিদর্শক দল বিভিন্ন গ্রাহকের অগোচরে তাদের ঋণ হিসাবের বিপরীতে শ্যাডো এ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে পরিচালকদের অবৈধভাবে অর্থ উত্তোলনের ঘটনাও খুঁজে পেয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিআইএফসির উদ্যোক্তা পরিচালকদের অন্যতম বিকল্প ধারার মহাসচিব মেজর মান্নান। তিনি কয়েক দফায় এ কোম্পানির চেয়ারম্যানও ছিলেন। বর্তমানে লোকসানি এ প্রতিষ্ঠানের বড় অংশের মালিকানা মূল উদ্যোক্তা হিসেবে তার ও পরিবারের সদস্য এবং স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কাছে রয়েছে।

Leave a Reply