৫৩ তম বিশ্ব ইজতেমার পথে লাখো মুসল্লি পায়ে হেঁটে

৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে টঙ্গীর তুরাগ তীরে ঢল নেমেছে মুসল্লিদের। শীতের উপেক্ষা করে তারা ছুটছেন তুরাগ মুখে। লাখ লাখ মুসল্লিদের পদচারণায় তুরাগ তীর ও এর আশপাশ এলাকায় অন্যরকম ধর্মীয় পরিবেশ বিরাজ করছে। ভোর থেকেই মানুষ পায়ে হেঁটে কিংবা বিকল্প পথে তুরাগের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন। তাদের একটাই লক্ষ্য আখেরি মোনাজাতে অংশ নেয়া। রবিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে আখেরি মোনাজাত শুরু হবে।

দ্বিতীয় পর্বেও আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন তাবলিগের অন্যতম শীর্ষ মুরব্বি কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ জোবায়ের। মোনাজাতের আগে তিনি ঈমান ও আমলের ওপর বিভিন্ন হেদায়েতি বয়ান করবেন। প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বের তিনি আখেরি মোনাজাত ও হেদায়তি বয়ান বাংলায় করবেন।

এর আগে সকাল আটটার দিকে হেদায়তি বয়ান শুরু হয়। হেদায়তি বয়ান করছেন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল মতিন। এরপর আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে।

সরেজমিন দেখা গেছে, মোনাজাতে অংশ নিতে ভোর থেকেই ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ছুটছেন টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে। টুপি, জুব্বা, পাঞ্জাবি পরিহিত বিভিন্ন বয়সী মানুষের স্রোত এখন তুরাগমুখী। কুড়িল ফ্লাইওভার থেকে যান চলাচলে নিয়ন্ত্রণ আনা হলে সেখান থেকে অনেকেই পায়ে হেঁটে রওয়ানা দেন।

এছাড়া মোনাজাতে শামিল হতে ঢাকা ছাড়াও গাজীপুর, নরসিংদী, ভৈরব, সাভার, মানিকগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ইজতেমা ময়দানে ট্রেন, বাস, ট্রাক, মাইক্রোবাস, জিপ, কার এবং নৌকাসহ নানা ধরনের যানবাহনে ইজতেমা ময়দানের দিকে ছুটে আসছেন মানুষ। ইজতেমা ময়দানে ঢুকতে না পেরে অনেকে রাস্তায় পাটি বিছিয়ে তাসবিহ-তাহলিল পড়ছেন। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের ভিড়ে পুরো ইজতেমা ময়দান এক জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে।

মানুষের ভিড়ে রেডিসন, কুড়িল ফ্লাইওভার, খিলক্ষেত, উত্তরা, জসিমউদ্দীন, আবদুল্লাহপুর, চৌরাস্তা, আশুলিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় যান চলাচল শিথিলতা করা হয়েছে। যানবাহন না পেয়ে অধিকাংশ মুসল্লি পায়ে হেঁটেই রওনা হয়েছেন।

ইজতেমার কারণে কুড়িল ফ্লাইওভারে ভারী যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার চলতে দেখা যাচ্ছে। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে মোটরসাইকেল ও ভ্যানচালকরা বেশি দাম নিচ্ছেন।

উল্লেখ্য, গত ১২ জানুয়ারি বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু হয়। ১৪ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে ইজতেমার প্রথম ধাপ। মাঝে চারদিন বিরতির পর ১৯ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে দ্বিতীয় ধাপ। একইভাবে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে আজ শেষ হতে যাচ্ছে ২০১৮ সালের বিশ্ব ইজতেমা।