হাজিরা দিয়ে ডাক্তাররা কোথায় যায়: দুদক কমিশনার

আনোয়ার হাসান চৌধুরী, কক্সবাজার থেকে : সকালে হাসপাতালে হাজিরা দিয়ে ডাক্তাররা কোথায় যায়? তা নজরে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনার (দুদক) এ.এফ.এম আমিনুল ইসলাম (তদন্ত)।

‘জনতাই শক্তি রুখবে দুর্নীতি’-এ শ্লোগানকে সামনে রেখে কক্সবাজারে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর গণশুনানী চলে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় কক্সবাজার সদর উপজেলার এড. সাহাব উদ্দীন মিলনায়তনে গণশুনানী শুরু হয়ে চলে বেলা ১টা পর্যন্ত।

হাসপাতালের অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ নিয়ে দুদকের গণশুনানীতে অভিযোগকারীদের প্রতি উত্তরে দুদক কমিশনার বলেন, ‘আমি দেশের অন্তত ২৫টি সরকারী হাসপাতালে গিয়েছি। এসব হাসপাতালে ব্যাপক অনিয়মে ভরপুর।
সরকারি হাসপাতালগুলোর কেন এমন দশা?।’ দুদক কমিশনার কক্সবাজার সদর হাসপাতালে সৃষ্ঠ জটিলতা দ্রুত সমাধান করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

গণশুনানীর শুরুতে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাবঞ্চিত সেবা প্রার্থীদের অভিযোগে উত্তপ্ত হয়ে উঠে অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ।

গণশুনানীতে জয়নাল আবেদীন নামের এক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, সদর হাসপাতালে বেশ কয়েকবার গিয়েও আমি চিকিৎসা পায়নি। ডাক্তাররা আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে হাসপাতাল ত্যাগ করতে বাধ্য করেছেন।

আরেক অভিযোগকারি যুব নেতা নাজিম উদ্দিন বলেন, কথায়-কথায় সদর হাসপাতালের ধর্মঘটের কারণে দুই সপ্তাহে ২০ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসা সেবা প্রার্থীদের ধরে মারধর করে জেলে পাঠিয়েছে ডাক্তাররা।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, রোগীর স্বজনদের বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা দেয়া হয়েছে। সদর হাসপাতালে খাবারের মানও খুবই নিম্নমানের। দেখ ভালের কেউ যেন নেই।

উক্ত অভিযোগের উত্তর পর্বে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ডাঃ বিধান পাল সন্তোষ জনক উত্তর দিতে না পারায় উপস্থিত সবার মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করে।

গণশুনানিতে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন প্রমুখ।