হবিগঞ্জে মুক্তিপণ না দেয়ায় শিশুকে হত্যা, গ্রেপ্তার ২

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে মো. শাহ পরান নামে সাত বছরের এক স্কুলছাত্রকে হত্যার পর ডোবায় ফেলে দিয়েছে ঘাতকরা। রবিবার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে পাঠায়। অপহরণের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত শিশুটি স্থানীয় সাতপাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণির ছাত্র ও শিবজয় নগরের মো. সাবাস মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, গত ৬ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মো. শাহ পরান নিখোঁজ হয়। বাড়ি না ফিরলে তার স্বজনরা তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। রাতে একই গ্রামের তাউস মিয়ার ছেলে জালাল মিয়া ও তার সহযোগী বড়লেখা উপজেলার আকুল নগরের রাশেল মিয়া ওরফে কোপা রাশেল শাহ পরানের মুক্তির জন্য মোবাইলে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এ ঘটনায় ৭ জানুয়ারি শাহ পরানের বাবা সাবাস মিয়া থানায় একটি জিডি করেন। জিডিতে উল্লিখিত মোবাইল ফোন নম্বর ট্রেকিং করে থানার এসআই মমিনুল ইসলাম সকালে জালাল মিয়া ও রাশেল মিয়াকে বড়লেখা থেকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারদের দেয়া তথ্য অনুসারে শিবজয়নগর একটি ডোবায় জঙ্গলের নিচ থেকে শাহ পরানের লাশ উদ্ধার করে।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।