সৌদি বাদশাহর মুখে কুলুপ!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল-সৌদ দেশটির সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী পরিষদ শুরা কাউন্সিলে ভাষণ দিয়েছেন। তবে সৌদি ঘাতকদের হাতে নিহত সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে নিয়ে ভাষণে কোনো টু শব্দও উচ্চারণ করেননি তিনি।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পর যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের পাঠানো ১৫ সদস্যের কিলিং স্কোয়াডের হাতে খুন হন সাংবাদিক জামাল খাশোগি। তাকে হত্যার পর মরদেহ কেটে টুকরো টুকরো করে অ্যাসিডে পোড়ানো হয়েছে বলে দাবি করেছে তুরস্ক।

খাশোগিকে হত্যার অডিও রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্র-সহ পশ্চিমা বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশের কাছে হস্তান্তর করেছে তুরস্ক। এদিকে, খাশোগিকে হত্যার সর্বশেষ প্রমাণ হিসেবে বেরিয়ে এসেছে মরদেহ টুকরো করার ছবি।

ইরাক এবং মধ্যপ্রাচ্য নিয়ে কাজ করা সাংবাদিক, অ্যাক্টিভিস্ট ও স্বাধীন লেখকদের জন্য উন্মুক্ত প্লাটফর্ম আল সুরার একটি প্রতিবেদনে কিছু ছবি প্রকাশ করে দাবি করা হয়েছে, ছবিগুলো খাশোগির লাশ টুকরো করার সময়কার। তবে এসব ছবির সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সোমবার সৌদি শুরা কাউন্সিলে দেয়া বাদশাহর ভাষণ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। এসময় ন্যায় বিচারের স্বার্থে দেশটির বিচার বিভাগ ও পাবলিক প্রসিকিউশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশংসা করলেও তার মুখে শোনা যায়নি সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডের কোনো কথা।

এর গত সপ্তাহে সাংবাদিক খাশোগি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পাঁচ সন্দেহভাজন কর্মকর্তাকে ফাঁসিতে ঝুলানোর ঘোষণা দেন সৌদির পাবলিক প্রসিকিউটর।

সৌদির বাদশাহর বহুল প্রত্যাশিত এই ভাষণে ইয়েমেন যুদ্ধের অবসানে জাতিসংঘের নেয়া পদক্ষেপে তার সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছেন। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, সৌদি আরবের কাছে অগ্রাধিকারের তালিকায় শীর্ষে আছে ফিলিস্তিন সঙ্কট।

সৌদি বাদশাহ বলেন, সিরিয়ার বাস্ত্যুচুত মানুষের দেশে ফেরা নিশ্চিত করতে দেশটির রাজনৈতিক সমাধানে রিয়াদের সমর্থন রয়েছে। সৌদি বাদশাহর এই ভাষণের পর আরব সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি স্টাডিজের পরিচালক মারওয়ান কাবালান আল-জাজিরাকে বলেন, ভাষণ ছিল অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত।