সাতকানিয়ায় ইসলামী ব্যাংকের ৩২৩তম শাখা উদ্বোধন

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর ৩২৩তম শাখা ৬ আগস্ট ২০১৭ রবিবার চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় উদ্বোধন করা হয়েছে।ব্যাংকের চেয়ারম্যান আরাস্তু খান প্রধান অতিথি হিসেবে এ শাখা উদ্বোধন করেন।ব্যাংকের এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন, ডাইরেক্টর প্রফেসর ড. মো. সিরাজুল করিম ও প্রফেসর মো. নাজমুল হাসান পিএইচডি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন।ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও প্রধান নির্বাহী মো. আব্দুল হামিদ মিঞার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন এডিশনাল ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মো. মাহবুব উল আলম। ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মোহাম্মদ মুনিরুল মওলা, আবু রেজা মো. ইয়াহিয়া ও জেকিউএম হাবিবুল্লাহ এফসিএস, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট জাফর আলম, চট্টগ্রাম উত্তর জোনপ্রধান মো. মোস্তাফিজুর রহমান সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জোনপ্রধান নিজামুল হক, আগ্রাবাদ করপোরেট শাখা প্রধান মোহাম্মদ শহীদ উল্লাহ এফসিএ, ব্যাংকের নির্বাহী, স্থানীয় ব্যবসায়ী, পেশাজীবী ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।স্থানীয় বিশিষ্টজনদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাতকানিয়া পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ জোবায়ের, সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রফিকুল হোসেন, সোনাকানিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর আহমদ, পলাশ জুয়েলার্সের স্বত্বাধিকারী পলাশ ধর, ও নারী উদ্যোক্তা রুমী আক্তার প্রমুখ।আরাস্তু খান প্রধান অতিথির ভাষণে বলেন, দেশের টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করছে ইসলামী ব্যাংক। উৎপাদনমুখী ও কল্যাণকর যেকোনো উদ্যোগে ব্যবসায়ীদের পাশে থাকবে এ ব্যাংক। তিনি বলেন, গণমানুষের আস্থার ব্যাংক হিসেবে শহর ও পল্লীর অর্থনীতির সেতুবন্ধন হিসেবেও কাজ করছে ইসলামী ব্যাংক।শরিয়াহ্ ইসলামী ব্যাংকের মূল চালিকা শক্তি উল্লেখ করে তিনি শরিয়াহনীতি যথাযথ পালনে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সর্তক থাকার আহ্বান জানান।মো. আব্দুল হামিদ মিঞা সভাপতির ভাষণে বলেন, সাতকানিয়ার ব্যবসায়িক কার্যক্রমে আরও গতি সঞ্চার করতে ইসলামী ব্যাংকের এ শাখা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। তিনি এ ব্যাংকের কল্যাণমুখী সেবাসমূহ গ্রহণে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি বলেন, মানুষের জীবনমান উন্নয়নে স্থানীয় আমানত এ অঞ্চলেই বিনিয়োগ করার মাধ্যমে এলাকার উন্নয়নে ভুমিকা রাখা হবে। তিনি নারী উদ্যোক্তা,পল্লী উন্নয়ন প্রকল্প ও ক্ষুদ্র বিনিয়োগের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সবার কাছে সেবা পৌঁছে দিতে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।