সাংবাদিকদের কল্যাণে ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ : তারানা হালিম

সংসদ ভবন, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ : বর্তমান সরকার সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি ও কল্যাণে বিভিন্ন পদক্ষেপের অংশ হিসেবে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট্রের অনুকূলে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৫ কোটি টাকার বাজেট বরাদ্দ করেছে এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা মঞ্জুর করেছে।

আজ জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর পক্ষে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এ তথ্য জানান।

তারানা হালিম বলেন, সরকার ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে ৩০৩ জন সাংবাদিককে ২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা অনুদান মঞ্জুর করেছে। এছাড়া ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ২৩১ জনকে ১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা, ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে ১৯৬ জনকে ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৮১জনকে ১ কোটি ২০ লাখ টাকা, ২০১২-২০১৩ অর্থবছরে ১৮৫ জনকে ১ কোটি টাকা ও ২০১১-২০১২ অর্থবছরে ৬১ জনকে ৫০ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবাবায়নের পাশাপাশি গত ২৯ জানুয়ারি ৯ম ওয়েজ বোর্ড গঠন করেছে। এছাড়া সাংবাদিকদের জন্য জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১৭ প্রণয়ন করেছে। সাংবাদিকদের দক্ষতা উন্নয়নে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিট ২২ হাজার ৫৫৩ জন সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে। সরকার জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা ২০১৪ প্রণয়ন করেছে এবং প্রস্তাবিত সম্প্রচার আইন ২০১৮ খসড়ার চূড়ান্ত পরিমার্জন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

বেগম ফজিলাতুন নেসা বাপ্পীর অপর এক প্রশ্নের জবাবে তারানা হালিম বলেন, বর্তমানে দেশে ৪৮৭টি দৈনিক পত্রিকা হতে শতকরা ২ভাগ সার্ভিস চার্জ হারে ৩২ লাখ ১৩ হাজার ৯৭৫ টাকা ২৬ পয়সা আয় হয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে ১ হাজার ২২০টি পত্রিকা প্রকাশিত হয়। এর মধ্যে ৪৮৭টি দৈনিক পত্রিকা। ঢাকা থেকে দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত হয় ২১৪টি। এছাড়া ৪৪টি টেলিভিশন চ্যানেলকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে এবং বর্তমানে ৩০টি চ্যানেল সম্প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

তারানা হালিম বলেন, দেশের বাইরে থেকে জামাত-শিবির ৩শ’টি ফেইস বুক পরিচালনা করে সরকারের বিরুদ্ধে নানা গুজব সংবাদ পরিবেশন করছে। সরকারের বিরুদ্ধে গুজব সংবাদ প্রতিরোধে একটি সেল প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে এর কার্যক্রম শুরু হবে। তিনি সকল মন্ত্রী এবং সংসদ সদস্যদের তাদের ফেইস বুক বিটিআরসির মাধ্যমে ভেরিফাই করে নেয়ার জন্য আহ্বান জানান।

Inline
Inline