সরকার একুশের চেতনা ভূলুণ্ঠিত করেছে: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : গণতন্ত্র হরণ করে সরকার একুশের চেতনা ভূলুণ্ঠিত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব এমন মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের গণতান্ত্রিক যে চেতনা, যে চেতনার ভিত্তিতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন হয়েছিল; পরবর্তীতে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ। সেই চেতনা আজ ভূলুণ্ঠিত। আমরা আজ যে গণতান্ত্রিক অধিকার, সেই অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। গোটা জাতি আজ তার মৌলিক অধিকার হারিয়ে ফেলেছে।

‘শুধু তাই নয়, আজ দুর্ভাগ্যজনকভাবে গণতন্ত্রের মাতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারারুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। লাখো গণতন্ত্রকর্মী গণতন্ত্রের জন্য অবরুদ্ধ হয়েছেন, কারারুদ্ধ হয়েছেন।’

খালেদা জিয়াসহ সব বিরোধী নেতাকর্মীর অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব।
একুশের শহীদসহ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের বীরদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে তিনি বলেন, ১৯৫২ সালে রাষ্ট্রভাষা উর্দুর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মানুষ রুখে দাঁড়িয়েছিল এবং আমাদের বীর ছাত্ররা সেদিন মাতৃভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষায় স্বীকৃতি দেয়ার জন্য বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিল। এরই ফলশ্রুতিতে আমরা মাতৃভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষায় পরিণত করতে পেরেছি। এদিন প্রথিত হয়েছিল স্বাধীনতার মুক্তির বীজ। সেই বীজ থেকে অঙ্কুরিত হয় আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশ।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ১০ মিনিটে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা বেদিতে এসে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তারা বুকে কালো ব্যাজও ধারণ করেন।

কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম, জয়নাল আবেদীন ফারুক, খায়রুল কবির খোকন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, তাবিথ আউয়াল, শামীমুর রহমান শামীম, মীর নেওয়াজ আলী, হারুনুর রশীদ হারুন, আমিরুজ্জামান শিমুল, ফরহাদ হোসেন আজাদ, অঙ্গসংগঠনের মধ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, আহসানুল্লাহ হাসান, যুবদলের মোরতাজুল করীম, নুরুল ইসলাম নয়ন, স্বেচ্ছাসেবক দলের শফিউল বারী বাবু, আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, ইয়াসীন আলী, হেলেন জেরিন খান, শ্রমিক দলের আনোয়ার হোসেইন, নুরুল ইসলাম নাসিম, জাসাসের হেলাল খান, শায়রুল কবির খান, সালাহউদ্দিন ভুঁইয়া জুয়েল, ড্যাবের রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, উলামা দলের শাহ নেসারুল হক, মুক্তিযোদ্ধা দলের ইশতিয়াক আজিজ উলফাত, সাদেক আহমেদ খান, তাঁতীদলের আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বিএনপি মহাসচিবের নেতৃত্বে নেতারা সকাল ৮টায় আজিমপুর কবরস্থানে ভাষাশহীদদের কবর জিয়ারত করেন। তারা শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করেন।