‘সমঝোতা ব্যর্থ হলে পরমাণু তৎপরতা শুরু করবে ইরান’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গতমাসে ইরানের পরমাণু সমঝোতা চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে যাওয়ার পর এ চুক্তি টিকিয়ে রাখার ব্যাপারে মত দিয়েছে চুক্তিতে থাকা দেশগুলো। আর সমঝোতা চুক্তি ব্যর্থ হলে পরমাণু তৎপরতা শুরুর হুঁশিয়ারি দিয়েছে ইরান।

আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ’তে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত রেজা নাজাফি বুধবার ভিয়েনায় এক সংবাদ সম্মেলনে এই হুঁশিয়ারি দেন। খবর পার্সটুডের।

ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোতে কিছু সুনির্দিষ্ট কাজ পুনরায় শুরু করার প্রস্তুতির ব্যাপারে তেহরান আইএইএ’কে সম্প্রতি যে চিঠি দিয়েছে সে ব্যাপারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে নাজাফি এ কথা বলেন।

ইরানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘এটি হচ্ছে একটি সম্ভাব্য পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুতিমূলক কর্মকাণ্ড। যদি অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে পরমাণু সমঝোতা ব্যর্থ হয় তাহলে ইরান এ সমঝোতায় প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি থেকে বেরিয়ে গিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে নিজের পরমাণু কর্মসূচি শুরু করবে।’

রেজা নাজাফি জানান, ইস্পাহানের পরমাণু স্থাপনায় ইউএফসি৬ উৎপাদনের জন্য ইউসিএফের (ইউরেনিয়াম কনভার্সন ফ্যাসিলিটি) কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নিচ্ছে তার দেশ। পাশাপাশি নতুন করে সেন্ট্রিফিউজ নির্মাণের জন্য অবকাঠামোগত কাজ শুরু করারও প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।’

ইরানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে, পরমাণু সমঝোতাকে পাশ কাটিয়ে ইরান এখনই পরমাণু তৎপরতা শুরু করছে; বরং এটি প্রস্তুতিমূলক কাজ। যদি সমঝোতার একটি পক্ষ তার প্রতিশ্রুতি লঙ্ঘন করে তাহলে অপরপক্ষেরও একই ধরনের কাজ করার অধিকার থাকবে।’

২০১৫ সালে বেশ কয়েকটি শর্তের বিনিময়ে ইরানের সঙ্গে পরমাণু সমঝোতা চুক্তি করে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানি, চীন ও রাশিয়া। তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার করা এই চুক্তিকে শুরু থেকে ভুল সিদ্ধান্ত বলে অভিযোগ করে আসছিল বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এরপরই গত মাসে মিত্র দেশ ফ্রান্স ও জার্মানির অনুরোধ উপেক্ষা করেই পরমাণু সমঝোতা চুক্তি থেকে সরে দাঁড়ায় যুক্তরাষ্ট্র।