সবজিতে স্বস্তি থাকলেও পিঁয়াজের বাজার দরে অস্বস্তি

রাজধানীর কাঁচাবাজারে সরবরাহ বাড়ায় দাম কমেছে সব ধরনের সবজির। তবে পুরোপুরি স্বস্তি আসেনি পিঁয়াজের দামে। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কাওরানবাজার ও নিউমার্কেটসহ কয়েকটি কাঁচাবাজার সরেজমিন ঘুরে এ তথ্য জানা যায়। ব্যবসায়ীরা বলেছেন, বাজারে শীতকালীন সবজির সরবরাহ বেড়েছে। ফলে সবজির দাম এখন কমতির দিকে। সামনে দাম আরো কমবে।

গতকাল বাজারে বিভিন্ন ধরনের সবজির মধ্যে বেগুন ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, আলু ২০ থেকে ২২ টাকা, ফুলকপি, বাঁধাকপি ২৫ থেকে ৩০ টাকা, সিম ৪০ থেকে ৫০ টাকা, টমেটো ৫০ থেকে ৬০ টাকা, করলা ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, শসা ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, লাউ ৩৫ থেকে ৫০ টাকা, মূলা ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। যা এক মাস আগের তুলনায় সবজিভেদে কেজিতে ১০ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত কমেছে। কমেছে কাঁচামরিচের দামও। প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। তবে পুরোপুরি স্বস্তি ফেরেনি পিঁয়াজের দরে। দাম কিছুটা কমলেও এখনো প্রতি কেজি দেশি পিঁয়াজ ( মুড়িকাটা) ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ও আমদানিকৃত পিঁয়াজ ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারে ব্রয়লার মুরগির দাম কিছুটা বেড়েছে। সরকারের বিপণন সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসেবে গতকাল প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয় ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ১২৫ থেকে ১৩৫ টাকা। এ ছাড়া দেশি মুরগি ৩৫০ থেকে ৩৮০ টাকা, লেয়ার লাল মুরগি ১৬০ টাকা, গরু ৫২০ টাকা, খাসী ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়।

মাছের মধ্যে রুই, কাতলা ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা, সরপুঁটি ২৫০ থেকে ২৮০ টাকা, তেলাপিয়া ১২০ থেকে ১৮০ টাকা, পাঙ্গাস ১৬০ থেকে ২০০ টাকা, শিং, মাগুর ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়।